বাংলাদেশে স্মার্টফোনের চাহিদা বাড়বে

আমেরিকাতে আর তিন-চার বছরের মধ্যেই ফিচার ফোনের থেকে স্মার্টফোনের সংখ্যা অনেক বেড়ে যাবে। এর ফলে মোবাইল ফোনের সঙ্গে কম্পিউটারের পার্থক্য অনেকাংশে কমে আসবে। উল্লেখ্য স্মার্টফোনে কম্পিউটারের মত প্রসেসর, র‍্যাম হার্ডডিস্ক এ ধরণের যন্ত্রপাতি রয়েছে এবং স্মার্টফোন দিয়ে খুব ভাল ভাবে ইন্টারনেট ব্রাউজ করা যায়। তাছাড়া উন্নতমানের ছবি তোলা ও ভিডিও করা এসবই স্মার্টফোনের মধ্যে রয়েছে।

বাংলাদেশে স্মার্টফোনের তেমন প্রচলন এখনো ঘটেনি। বেশ কিছু মডেল এখন বাজারে পাওয়া যাচ্ছে এর মধ্যে অবশ্যয় নোকিয়ার কথা উল্লেখ করতে হয়। স্যামসাং ও চেষ্টা করছে স্মার্টফোনকে বাংলাদেশে জনপ্রিয় করতে। কিন্তু মূল সমস্যা হচ্ছে এখন পর্যন্ত এ ধরণের মোবাইল ফোনের দাম অত্যন্ত বেশি। আর তাছাড়া বাংলাদেশের বেশিরভাগ ক্রেতাই এখন পর্যন্ত কমদামী মোবাইল ফোনের প্রতি আগ্রহী।

যখন আমরা কোন নতুন মোবাইল ফোন কিনতে যাই তখন বোধহয় আমাদের সবার চিন্তাই থাকে কতটা কমদামী সেট কেনা যায়। অনেকে আবার ফ্যাশনের দিকে চিন্তা করেন। তবে যতই মানুষের ব্যস্ততা বাড়বে এবং কম্পিউটার এবং ইন্টারনেটের প্রয়োজনীয়তা বাড়বে ততোই স্মার্টফোনের চাহিদা বাড়তে থাকবে। তাই আগামী পাঁচ বছরে বাংলাদেশে স্মার্টফোনের ব্যবহার অনেকাংশে বাড়বে এটা বেশ নিশ্চিত করেই বলা যায়।

About মোঃ লিটন

একটি উত্তর দিন