ভ্রাম্যমান টয়লেট (জোকস)

বাঙ্গালী এক বন্ধু বেড়াতে আমেরিকা গেছে। তো তাদের এখানে খুব ভালই বেড়াতে লাগল যাই দেখে খুব অবাক হয়। সেখানে ভ্রাম্যমান লাইব্রেরী মোটামোটি অনেক কিছু ই ভ্রাম্যমান আছে। আমেরিকান বন্ধু বলে এখানে সবকিছুই ডিজিটাল ও ভ্রাম্যমান আছে। বাঙ্গালী বন্ধু জিজ্ঞেস করল আচ্ছা তোদের এখানে কি ডিজিটাল টয়লেট বা ভ্রাম্যমান টয়লেট আছে। আমেরিকান বন্ধু অনেক চিন্তা ভাবনা করে বলল নাহ নেই। তখন বাঙ্গালী বন্ধু চাপা মেরে বলল কি আশ্চর্য এত উন্নত দেশ অথচ ভ্রাম্যমান টয়লেট নাই। নাহ তোদের দেশ খুব বেশী উন্নত হয়নি। অথচ বাংলাদেশে ভ্রাম্যমান টয়লেট আছে। বন্ধু তো অভাক তাই নাকি। তো বন্ধু দেশে ফেরার প্রায় ২/৩ বছর পর আমেরিকান বন্ধু বেড়াতে এসেছে তো ভালই ঘুরতে ফিরতে লাগল হঠাৎ করেই আমেরিকান বন্ধুর মনে পরে গেল ভ্রাম্যমান টয়লেটের কথা। তাই বাঙ্গালী বন্ধু কে জিজ্ঞেস করল আচ্ছা দোস্ত তুই না বলেছিলি বাংলাদেশে ভ্রাম্যমান টয়লেট আছে কই দেখালি না কেন। বাঙ্গালী বন্ধু তো মহাফাপড়ে পড়ল কই পাই ভ্রাম্যমান টয়লেট । যা চিন্তা করে কোন উপায়ই পায়না। কিন্তু আমেরিকান বন্ধু চাপ দিচ্ছে বন্ধু দেখা দেখা…. অবশেষে বন্ধু বলল আচ্ছা আগামীকাল দেখাব। কি আর করা নিরুপায় হয়ে আমেরিকান বন্ধকে নিয়ে রওনা হল রমনা পার্কে পার্কে বসে আছে। আর বন্ধু তুই না বললি ভ্রাম্যমান টয়লেট দেখাবি এখন পার্কে এসে বসে আছিস কেন। হঠাৎ করেই বাঙ্গালী বন্ধুর মাথায় বুদ্ধি এল সে দেখল বুখরা পড়া একটি মেয়ে এদিকে আসছে সে বলল দোস্ত দেখ দেখ ভ্রাম্যমান টয়লেট আসছে। বন্ধু তো অভাক তাই এদিকে আপাদ মস্তক কাপড়ে ঢাকা কি যেন এদিকে আসছে। তখন আমেরিকান বন্ধু বলল বন্ধু আমি দেখে আসি তুই একটু বস। আমেরিকান বন্ধু আস্তে আস্তে বোখরা পড়া মেয়েটির কাছে এসে মুখের কাপড় উপরের দিকে তুলতেই মেয়ে সজোড়ে এক থাপ্পড় বসাল ছেলেটির গালে। ছেলে তো হতভম্ব। কি ব্যাপার তাড়াতাড়ি বাঙ্গালী বন্ধুর কাছে এসে বলল কি ব্যাপার বন্ধু আমি যেই না টয়লেটের কাপড় তোলার চেষ্টা করেছি অমনি আমাকে মেয়েটি আমাকে থাপ্পড় মারল। তখন বাঙ্গালী বন্ধু হেসে হেসে বলল আরে দোস্ত তুই আগে দেখবি না যে টয়লেটে মেয়ে আছে।

About চক

একটি উত্তর দিন