২০১৫ সালের মধ্যে বদলে যাবে টেলিভিশন জগৎ

‘২০১৫ সালের মধ্যে ১২ বিলিয়নেরও বেশি মানুষ নতুন ডিভাইসের মাধ্যমে ইন্টারনেটের প্রায় ৫০০ বিলিয়ন ঘণ্টার ভিডিওর সঙ্গে সংযুক্ত হতে সমর্থ হবে,’ জানিয়েছে বিশ্ববিখ্যাত চিপ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান ইনটেল। খবর বিবিসির।

বিবিসি জানিয়েছে, ইনটেলের মতে, ভবিষ্যতের টিভি হবে সামাজিক, ব্যক্তিগত এবং তথ্যপূর্ণ। স্যান ফ্রান্সিসকোর ইনটেল ডেভেলপার ফোরামের এক অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে ইনটেলের প্রধান টেকনোলজি অফিসার বলেন, ‘টিভির অবস্থান হবে গতানুগতিক ধারণার বাইরে। টিভি আমাদের জীবনের কেন্দ্রেই অবস্থান করবে, তবে আপনি এতে যখন যা খুশি দেখতে পারবেন। আমরা কথা বলছি টিভির মতোই কোনো এক ডিভাইস সম্পর্কে যা হবে টিভির চেয়েও অনেক বেশিকিছু এবং যা পৃথিবীর প্রতিটি মানুষের কাছেই থাকবে।’

এ অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে তিনি আরো বলেন, ‘মানুষ এমন সব উপায়ে ইন্টারনেটের ভিডিওচিত্রের সঙ্গে সংযুক্ত হতে যাচ্ছে যা আগে কখনো সম্ভবপর হয়নি।’

সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে, ইনটেল নতুন কিছু ডিভাইস তৈরি করতে যাচ্ছে যা ২০১০ সালে বাজারে আসার কথা রয়েছে। এ ডিভাইস মোবাইল, ডিজিটাল টিভি, থ্রিডি টিভি, ডিভিডি প্লেয়ারসহ প্রায় সব বহনযোগ্য ডিভাইসে লাগিয়ে ইন্টারনেট থেকেই ভিডিও দেখা সম্ভব হবে। আর সেজন্যই ইনটেল বলছে- ভবিষ্যতের টিভি হবে ব্যক্তিগত, সামাজিক এবং সবার।

তবে, ইনটেলের ডিজিটাল হোম গ্রুপ প্রধান এরিক কিম নতুন এই ডিভাইসকে যতোটা সম্ভব সহজ এবং সাধারণ তথা ব্যবহার-বান্ধব রাখার কথাই বলেছেন। তিনি বলেন, ‘আমার টিভিকে আপনারা কম্পিউটার বানিয়ে দেবেন না’ ভোক্তাদের কাছ থেকে এমন মতামত তারা প্রায়ই পাচ্ছেন।

তার মতে, নতুন প্রজন্মের টিভিকে সাধারণ এবং সহজে ব্যবহারযোগ্য রেখে ইন্টারনেট ভিডিওর সকল ক্ষমতা এবং পরিপূর্ণতা এনে দেয়াটাই তাদের জন্য এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।

কিম সাংবাদিকদের নতুন কিছু হার্ডওয়্যারের সঙ্গেও পরিচিত করান, যা তারা নতুন ডিভাইসকে ইন্টারনেট টিভি চালানোয় সক্ষম করে তোলার কাজে ব্যবহার করবেন। এই হার্ডওয়্যারগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘এটম সিই৪১০০ এসওসি’ (সিসটেম অন এ চিপ) যার মাধ্যমে ইন্টারনেটের ভিডিও সরাসরি চালানো সম্ভব হবে ডিজিটাল টিভি, ডিভিডি পে−য়ার এবং অ্যাডভান্সড সেট-টপ বক্সে।

সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে, ইনটেল ডেভেলপার ফোরামের ওই অনুষ্ঠানে সবাই এক মুহুর্তের জন্য হলেও যেন ভবিষ্যতকে দেখলেন। আজকের ঘরের কোণের বা দেয়ালে সাঁটানো টেলিভিশন আর মাত্র কয়েক বছর পরই সবার হাতে হাতে থাকবে। আর সেসব টিভিতে থাকবে যখন যা খুশি উপভোগ করার এক চমৎকার সুবিধা, যা নিঃসন্দেহে জীবনযাত্রাকে করবে আরো বেশি আধুনিক ও সহজতর।

বিডিনিউজটোয়েন্টিফোরডটকম/সজীব/এইচবি/এইচআর/অক্টোবর ০১/০৯

About বদরুল খান