১২ ঘণ্টায় ২১ লাখ জিওমি ফোন বিক্রি

১২ ঘণ্টায় ২১ লাখ জিওমি ফোন বিক্রি

phoneপরিচিতির দিক থেকে একেবারে নতুন। আর জায়ান্টদের তুলনায় একেবারে নস্যি। তবুও অ্যাপল, স্যামসাং কিংবা এক সময়ের ব্ল্যাকবেরি ও নকিয়া যা পারেনি; সেটিই করে দেখাল জিওমি। অনেকের কাছে অখ্যাত এ কোম্পানি বিক্রির দিক থেকে রেকর্ড করে ফেলেছে। তাও আবার বিশ্বরেকর্ড করে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে নাম লিখিয়ে ফেলেছে। অবশ্য স্বল্পতম সময়ে ব্যাপক হারে ডিভাইস বিক্রি চীনের অ্যাপল নামে পরিচিতি পাওয়া এ কোম্পানির জন্য নতুন কিছু নয়। এর আগেও বেশ কয়েকবার চমক দেখিয়েছে কোম্পানিটি। বিশ্বের বড় দুই বাজারের সুবিধা নিয়ে নামিদামি ব্র্যান্ডগুলোর জন্য ক্রমে হুমকি হয়ে উঠছে এটি। চীন ও ভারতের বাজারে বাজিমাত করেই রেকর্ড করেছে জিওমি। সর্বশেষ অনলাইনে স্মার্টফোন বিক্রির দিক থেকে রেকর্ড গড়েছে এটি। মাত্র ১২ ঘণ্টায় এটি ২১ লাখ ফোন বিক্রি করেছে। মাই ফ্যান ফেস্ট নামে এ প্রচারণার সময় স্বল্পতম সময়ে ফোন বিক্রির আগের সব হিসাব ওলটপালট হয়ে গেছে। ফোন বিক্রি থেকে কোম্পানির আয় হয়েছে সাড়ে ৩৩ কোটি ডলার।
একই সময়ে কোম্পানিটি ৭ লাখ ৭০ হাজার স্মার্ট অ্যাপ্লায়েন্স, ২ লাখ ৪৭ হাজার পাওয়ার স্ট্রিপ, ২ লাখ ফিটনেস ওয়াচ, ৭৯ হাজার ওয়াই-ফাই ইউনিট, সাড়ে ৩৮ হাজার স্মার্ট টিভি বিক্রি করেছে। জিওমিকে স্বল্পতম সময়ে টেক জায়ান্টগুলোর প্রতিদ্বন্দি হিসাবে দাঁড় করানোতে ফোর্বস এশিয়া কোম্পানির বিলিওনিয়ার সিইও লিউ জানকে ২০১৪ সালের বিজনেস ম্যান অব দ্য ইয়ার ঘোষণা করে।

About Sohel Rana

একটি উত্তর দিন