স্যামসাংয়ের জরিমানা ২৯ কোটি ডলার

স্যামসাংয়ের জরিমানা ২৯ কোটি ডলার

শেষ পর্যন্ত স্যামসাংয়ের জরিমানা ১০৫ কোটি ডলার থেকে কমে ২৯ কোটি ডলারে দাঁড়ালো। আদালতের দেয়া সর্বশেষ রায়ে মার্কিন বিচারক কোরিয়ান ইলেক্ট্রনিক্স জায়ান্ট স্যামসাংকে আইফোন এবং আইপ্যাডের ‘প্রযুক্তি নকলের’ অভিযোগে ২৯ কোটি মার্কিন ডলার জরিমানা করেছে।

জরিমানার এ অর্থ পেটেন্ট লঙ্ঘনের ক্ষতিপূরণ হিসেবে অ্যাপলকে পরিশোধ করতে হবে- এক প্রতিবেদনে বলেছে সংবাদসংস্থা বিবিসি।

এর আগে একই মামলায় স্যামসাংকে ১০৫ কোটি ডলার জরিমানার রায় হয়েছিল। ওই ‍রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের পর বিচারক লুসি কোহ জরিমানার অঙ্ক সঠিকভাবে নির্ধারণ করা হয়নি বলে পূণঃ শুনানির আদেশ দেন।

জরিমানা কমিয়ে দেয়া নতুন রায়ের পর এক বিবৃতিতে অ্যাপল বলেছে, “জরিমানার অঙ্ক বা পেটেন্টের চেয়েও মামলায় জয় অ্যাপলের কাছে অধিক গুরুত্বপূর্ণ।”

“যে কঠোর শ্রম আর আত্মনিয়োগের ফলে একএকটি পণ্য তৈরি হয় এবং তার জন্য ব্যবহারকারীর যে ভালবাসার সম্পর্ক সেটি কখনো টাকার অঙ্কে প্রকাশ করা সম্ভব নয়।”

“স্যামসাং সম্ভবত এই রায়ের বিরুদ্ধেও আপিল করবে”- প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে বিবিসি।

বিচারকের রায়ের মধ্যে স্যামসাংয়ের ১৩ থেকে ২৬টি ডিভাইসের পেটেন্ট লঙ্ঘনের কথা উল্লেখ রয়েছে। এগুলোর অধিকাংশই স্যামসাংয়ের ট্যাবলেট এবং স্মার্টফোন ডিভাইস।

অ্যাপলের পেটেন্ট চুরির দায়ে দায়েরকৃত অন্য একটি মামলার শুনানির তারিখ ঠিক হয়েছে ২০১৪ সালের মার্চ মাসে। স্যামসাংয়ের আগের মডেল, যা কিনা অ্যাপলের প্রযুক্তি ব্যবহার করে বানানো হয়েছে সেগুলো্র বিক্রি বন্ধ করার আবেদনো জানিয়েছে অ্যাপল।

About বদরুদ্দোজা মাহমুদ তুহিন

একটি উত্তর দিন