সরকারের ‘ই-শপ’ উদ্বোধন

সরকারের ‘ই-শপ’ উদ্বোধন

e-shopই-কমার্সের সুবিধা মানুষের দোর গোড়ায় পৌঁছাতে ‘ই-শপ’ কর্মসূচি উদ্বোধন করেছে সরকার। এর আওতায় দেশের ৬৪ জেলায় একটি করে ই-শপ খোলা হবে। এসব ই-শপ যুক্ত থাকবে একটি কেন্দ্রীয় ই-কমার্স ওয়েবসাইটের সঙ্গে।
রোববার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সম্মেলনে কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন।
এই ই-শপ ব্যবহার করে উদ্যোক্তারা মধ্যস্বত্বভোগীদের এড়িয়ে সরাসরি অন্য অঞ্চলের ব্যবসায়ীর কাছে পণ্য বিক্রি করতে পারবেন।
অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘ই-শপ একটি যুগান্তকারী ধারণা। এই পদ্ধতিতে কম্পিউটার ও তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে গ্রামের স্বল্প আয়ের সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীকে কাঙ্ক্ষিত আয়ের পথে নিয়ে যাওয়া সম্ভব। ই-শপ গ্রামের সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীকে আর্থিক স্বচ্ছলতা এনে দেওয়ার পাশাপাশি দেশের অর্থনীতিতেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে।’
প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, চীনের জ্যাক মা কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত আলীবাবা মাত্র অল্প সময়ে বিশ্বের এক নম্বর ই-কমার্স কোম্পানিতে পরিণত হয়েছে। আলীবাবা বর্তমানে ট্রিলিয়ন ডলার কোম্পানি। আমাদেরও উদ্যোক্তারা যথেষ্ট পরিশ্রমী ও মেধাবী। শেখ হাসিনার সরকারের তাদের সেই উদ্যোগে সহযোগিতাও করছে। দেশের ই-কমার্স উন্নয়নে ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। ই-কমার্স খাতের জন্য একটি নীতিমালা প্রণয়ন করা হচ্ছে। অনলাইন পেমেন্ট বাড়ানোর জন্য বেশ কয়েকটি গেটওয়ে চালু হয়েছে। আন্তর্জাতিক কিছু গেটওয়ে কাজও করছে। ধীরে ধীরে আমাদের ই-কমার্স খাতের পরিসর বাড়ছে। এক সময় ট্রিলিয়ন ডলারের ই-কমার্স কোম্পানি এই বাংলাদেশেই হবে।
৬ কোটি ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই ই-শপ কর্মসূচি বাস্তবায়ন হবে। এ কর্মসূচির আওতায় এক হাজার উদ্যোক্তাকে ই-কমার্স বিষয়ে (ই-শপ পরিচালনার) প্রশিক্ষণ দিয়ে প্রশিক্ষক হিসেবে গড়ে তোলার কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ‘ই-শপ’ প্রকল্প বাস্তবায়নে সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে রয়েছে ফিউচার সলিউশন ফর বিজনেস (এফএসবি)।
এফএসবির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাদেকা হাসান জানান, এ কর্মসূচির আওতায় কেন্দ্রীয় ই-কমার্স ওয়েবসাইটে ৬৪টি জেলার সব পণ্য ও সেবা কার্যক্রম দেখানোর ব্যবস্থা হবে। অনলাইনে পণ্য কেনা ও মূল্য পরিশোধের ব্যবস্থা রাখা হবে সেখানে। আগামী ডিসেম্বর থেকে এ কর্মসূচির আওতায় গ্রাহকদের সেবা দেওয়া সম্ভব হবে বলে আশা করছেন সাদেকা হাসান।
অন্যদের মধ্যে সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের নির্বাহী পরিচালক সাব্বির বিন শামস ও কর্মসূচি পরিচালক আক্তার হোসেন অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন রংপুর-২ এর সংসদ সদস্য আবুল কালাম মো. আহ্সানুল হক চৌধুরী, মেহেরপুরের সংসদ সদস্য ফরহাদ হোসেন, আইসিটি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. হারুনুর রশিদ, আইসিটি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব পার্থ প্রতিম দেব, সুশান্ত কুমার সাহা প্রমুখ।

About Sohel Rana

একটি উত্তর দিন