শেষ হল জাইসার সহযোগিতায় বিসিসিতে আইটিইই বিষয়ক সেমিনার

শেষ হল জাইসার সহযোগিতায় বিসিসিতে আইটিইই বিষয়ক সেমিনার

বাংলাদেশের আইটি ব্যবসায় দক্ষ মানবসম্পদের চাহিদা পূরনে ইনফরমেশন টেকনোলজী ইঞ্জিনিয়ার্স এক্সামিনেশন- আইটিইই সহায়ক ভূমিকা রাখবে বলে  মন্তব্য করেছেন আইসিটি বিশেষজ্ঞগন।

আজ (১৫ জুন) বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল অডিটরিয়াম মিলনায়তনে বাংলাদেশে আইটিইই’র সম্ভাবনা বিষয়ক এক সেমিনারে  বক্তৃতাকালে এ মন্তব্য করেন তারা।

জাপান আইটি সার্ভিসেস ইন্ডাষ্ট্রি এসোসিয়েশনের (জাইসা) সহযোগিতায় বিডি-আইটেক ও বেসিস আয়োজিত এ সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আইসিটি সচিব নজরুল ইসলাম খান, আইপিএ’র প্রধান উপদেষ্টা সিন সাকাগুচি, বেসিসের সভাপতি শামীম আহসান, আইটিইই’র প্রকল্প পরিচালক ড. শেখ আমজাদ হোসেন ও জাইকার আইটিইই প্রকল্পের প্রধান উপদেষ্টা হিদিও হোয়া।

আইসিটি সচিব নজরুল ইসলাম খান বলেন, বাংলাদেশে এই পরীক্ষা পদ্ধতি চালুর ফলে দেশের আইটি  পেশাজীবিগণ তাদের দক্ষতার পরিমাপ করতে পারছেন এবং এই সার্টিফিকেট অর্জনের ফলে দেশে ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তাদের গ্রহনযোগ্যতা বৃদ্ধি পাচ্ছে। আশা করা যায় এই সার্টিফিকেশনের মাধ্যমে আইটি  ক্ষেত্রে বিদেশে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টির পাশাপাশি এ ক্ষেত্রে দেশের দক্ষ মানবসম্পদের চাহিদা পূরন হবে।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল এর অধীনে “বাংলাদেশ আইটি ইঞ্জিনিয়ারস এক্সামিনেশন সেন্টার (বিডি-আইটেক)” এর মাধ্যমে দেশে জাপান সরকারের সহায়তায় তথ্য প্রযুক্তি  পেশাজীবিদের দক্ষতা পরিমাপক আইটিইই পরীক্ষা পদ্ধতি চালু রয়েছে। জাপানে এটি আইটি  প্রোফেশনালদের মান নিয়ন্ত্রক হিসেবে জাতীয় পরীক্ষা পদ্ধতি হিসেবে পরিচিত এবং বছরে পাঁচ থেকে ছয় লাখ পরীক্ষার্থী এই পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে থাকে। এশিয়ার ১২টি দেশে মিউচুয়ালি এই পদ্ধতি চালু আছে।

About অঞ্জন দেব

একটি উত্তর দিন