শিক্ষকদের তৈরি ডিজিটাল কনটেন্ট ও মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুমের উদ্বোধন সরাসরি দেখুন

শিক্ষকদের তৈরি ডিজিটাল কনটেন্ট ও মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুমের উদ্বোধন সরাসরি দেখুন

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ ২০ মে তাঁর কার্যালয়ের শাপলা হল থেকে ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে “শিক্ষকদের তৈরি ডিজিটাল কনটেন্ট” ও “মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম” এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম উদ্ভাবিত মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম এবং শিক্ষকদের তৈরি ডিজিটাল কনটেন্ট মডেলটি উদ্বোধনের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থায় গুণগত মানোন্নয়নে এক ভিন্ন মাত্রা যোগ করলেন। শিক্ষা মন্ত্রণালয়, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় ও ইউএনডিপি’র কারিগরি সহায়তায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বাস্তবায়নাধীন সাপোর্ট একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম যৌথভাবে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

আগামিকাল সকাল ১০।৩০ মিনিটে এই অনুষ্ঠানটি সরাসরি কমজগত ডট কম থেকে সরাসরি সম্প্রচার করা হবে । সরাসরি দেখতে এই লিঙ্কে ক্লিক করুনঃ সরাসরি দেখুন

‘তথ্য প্রযুক্তি শিক্ষা নয় বরং শিক্ষায় তথ্য প্রযুক্তি’ এ ধারণার আলোকে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম মডেলে একটি ল্যাপটপ, একটি প্রজেক্টর, ইন্টারনেট সংযোগ ও কনটেন্ট তৈরির জন্য শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দরকার। সর্বসাকুল্যে এতে এক লক্ষ টাকা খরচ হতে পারে। যেকোনো বিষয় শিক্ষক এটি ব্যবহার করতে পারবেন এবং দিনে ৫/৬টি ক্লাস নেয়া যেতে পারে। অপরপক্ষে কম্পিউটার ল্যাব এপ্রোচে গেলে একটির জন্য বিশ লক্ষ টাকা খরচ হতে পারে এবং দৈনিক ৫/৬ টির বেশি ক্লাস নেয়া যাবে না। কম্পিউটার ল্যাব সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে করতে হলে ২৮ হাজার কোটি টাকা লাগবে এবং এতে ১৫/২০ বছর লেগে যেতে পারে। শিক্ষকদের তৈরি ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরি মডেলে শ্রেণীকক্ষের বিমূর্ত ও কঠিন বিষয়বস্তুকে শিক্ষার্থীদের জন্য আকর্ষণীয় ও মূর্ত করে তোলার জন্য ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। শিক্ষকরাই এখন কনটেন্ট তৈরি করছেন। কনটেন্ট তৈরির জন্য কম্পিউটারের সাধারণ জ্ঞান, ইন্টারনেট থেকে ছবি, অ্যানিমেশন বা ভিডিও ডাউনলোড করার কৌশল, তা পাওয়ারপয়েন্টে অন্তর্ভূক্ত করার দক্ষতা অর্জন করলেই চলবে। শিক্ষকদের তৈরি কনটেন্টগুলো (www.ictinedu.ning.com) এবং জাতীয় ই-তথ্যকোষে (www.infokosh.bangladesh.gov.bd)আপলোড করে রাখা হচ্ছে। ফলে অপেক্ষাকৃত পিছিয়ে পড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরাও ভালো কনটেন্ট দেখার সুযোগ পাচ্ছে। শিক্ষকগণ প্রয়োজনে কনটেন্ট এডিট করে নিজেদের উপযোগী করে শিক্ষার্থীদের তা দেখাচ্ছেন। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের ২০ হাজার ৫০০ স্কুল ও মাদ্রাসায় মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম স্থাপন ও শিক্ষক প্রশিক্ষণ কার্যক্রম এগিয়ে চলেছে। সরকারি-বেসরকারি ও ব্যক্তি উদ্যোগে ইতোমধ্যে ৫০০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম স্থাপন করা হয়েছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক প্রফেসর নোমান উর রশিদ এবং ওরাসকম টেলিকম হোল্ডিংস এর গ্রুপ সিইও এবং ভিম্পেলকম লিমিটেড এর ইভিপি আহমেদ আবু দোমা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ডা. আফছারুল আমীন এমপি ও স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের জাতীয় প্রকল্প পরিচালক মো. নজরুল ইসলাম খান। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে ভিডিও কনফারেন্সে যোগ দেন কুমিল্লার দেবীদ্বার উপজেলার রিয়াজউদ্দীন পাইলট স্কুল থেকে শিক্ষা সচিব কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী, যশোরের মনিরামপুর সরকারি বালিকা বিদ্যালয় থেকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এসএম গোলাম ফারুক, রংপুর টিচার্স ট্রেনিং কলেজ থেকে মাধ্যমিক স্তরে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম স্থাপন ও ডিজিটাল কনটেন্ট তৈরি প্রশিক্ষণ বিষয়ক আইসিটি প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক আবুল কালাম আজাদ এবং গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া জিটি মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা অধিদপ্তরের মহা পরিচালক শ্যামল কান্তি ঘোষ।

About blogger - ব্লগার

একটি উত্তর দিন