‘মেঘে ভাসমান’ অভিজ্ঞতা নতুন প্লেনে

‘মেঘে ভাসমান’ অভিজ্ঞতা নতুন প্লেনে

প্লেনের ছোট জানালা দিয়ে বাইরে উঁকি দেওয়ার সুযোগ বন্ধ করে দিচ্ছে বোস্টনভিত্তিক মার্কিন প্লেন প্রতিষ্ঠান স্পাইক অ্যারোস্পেস।

সম্প্রতি স্পাইক অ্যারোস্পেস ‘উইন্ডোলেস সুপারসনিক বিজনেস জেট’ চালুর ঘোষণা দিয়েছে। ওই প্লেনে কোনো জানালা থাকবে না। তবে, বাইরের দৃশ্য প্লেনের ভেতর থেকেই দেখা যাবে। এজন্য প্লেনের বাইরে অনেকগুলো মাইক্রো ক্যামেরা স্থাপন করা হবে। মেঘের ওপর ভেসে বেড়ানোর দৃশ্য তখন দেখা যাবে জানালার পরিবর্তে ব্যবহৃত ডিজিটাল পর্দায়।

windows

এ সম্পর্কে স্পাইক এরোস্পেস তাদের ওয়েবসাইটে জানিয়েছে, প্লেনে তারা সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করবে। এতে আলদাভাবে জানালা স্থাপন করার প্রয়োজন হবে না। এতে প্লেনের ওজন আগের চেয়ে কমবে, গতিও বাড়বে।

যাত্রীরা দিনে কিংবা রাতে জল, স্থল ও মহাকাশের বিভিন্ন চিত্র জানালার পরিবর্তে ব্যবহৃত বড় পর্দায় দেখতে পাবে। এতে জানালার পাশের সিটে বসার জন্য যাত্রীদের আগ্রহও কমবে।

স্পাইকের তৈরি প্লেন চলবে শব্দের চেয়ে দ্রুত গতিতে। এতে, লস এঞ্জেলস থেকে টোকিও যেতে সময় লাগবে মাত্র পাঁচ ঘণ্টা। আর নিউ ইয়র্ক থেকে লন্ডন যেতে সময় লাগবে তিন ঘণ্টা।

প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট উইয়্যার্ডের বরাত দিয়ে ম্যাশএবল জানিয়েছে, স্পাইক এস-৫১২ সুপারসনিক প্লেন তৈরিতে খরচ হবে আট কোটি ডলার।

২০১৮ সাল নাগাদ ওই প্লেন যাত্রীবহন শুরু হবে।

About কমজগৎ ডেস্ক

একটি উত্তর দিন