ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে হয়ে গেল নারী উদ্যোক্তাদের পণ্যের বিপণনকেন্দ্র ‘জয়িতা’ এর উদ্বোধন

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে হয়ে গেল নারী উদ্যোক্তাদের পণ্যের বিপণনকেন্দ্র ‘জয়িতা’ এর উদ্বোধন

নারী উন্নয়নে সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শুধু মুখে উন্নয়নের কথা বললে হবে না, নারীদের জন্য তৈরি করতে হবে ক্ষেত্রও।বুধবার রাজধানীতে হোটেল রূপসী বাংলার উইন্টার গার্ডেনে নারী উদ্যোক্তাদের উন্নয়ন প্রয়াস কর্মসূচীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দেশে নারীর উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নের জন্য সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। কেননা অর্ধেক জনগোষ্ঠীকে দূরে রেখে দেশের সার্বিক উন্নয়ন সম্ভব নয়।

সেখান থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ের নারী উদ্যোক্তাদের পণ্যের বিপণনকেন্দ্র ‘জয়িতা’ ও এর ওয়েবসাইট উদ্বোধন করেন তিনি। সরকারি উদ্যোগে রাজধানীর ধানমণ্ডির রাপা প্লাজায় খোলা হয়েছে এ বিপণিকেন্দ্র। উল্লেখ্য যে, কমজগত ডট কম এই ভিডিও কনফারেন্সের পূর্ণ সহযোগিতা প্রদান করে এবং সরাসরি ইন্টারনেটে সম্প্রচার করে ।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমরা নারীর আত্ম বিশ্বাস জাগ্রত করতে পেরেছি। নারীরা যে সকল কাজে পারদর্শী- তা প্রমাণ করেছি। তবে নারী উন্নয়নের কথা শুধু মুখে বললে হবে না, এর ক্ষেত্রও তৈরি করতে হবে।”

নারী উদ্যোক্তাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, “আমরা আমাদের বোনদের মাঝে আত্মবিশ্বাস তৈরি করতে চাই। আপনারা অবহেলিত বোনদের জন্য সুযোগ সৃষ্টি করে দেবেন।”

এর আগে প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে রাপা প্লাজায় জয়িতায় উপস্থিত নারী উদ্যোক্তাদের সঙ্গে কথা বলেন।

মহিলাবিষয়ক অধিদপ্তরের ‘নারী উদ্যোক্তা উন্নয়ন প্রয়াস (নাউউপ)’ নামক একটি কর্মসূচির আওতায় বিপণনকেন্দ্রটি স্থাপন করা হচ্ছে। ২০১৩ সালের জুন মাস পর্যন্ত এ কর্মসূচি পরিচালিত হবে। তৃণমূলের উদ্যোক্তাদের দালালদের হাত থেকে রক্ষা করে শতভাগ লাভবান করার উদ্দেশ্যে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় ‘জয়ীতা’ শীর্ষক এই কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।মন্ত্রণালয়ের সচিব তারিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “এই উদ্যোগ এখন ঢাকায় শুরু হলো। এরপর বিভাগ। তারপর, জেলায় জেলায় খোলা হবে মা-বোনেরা তাদের পণ্য বিক্রি করতে পারবেন।”

তিনি বলেন, “আমরা নারীর আত্মবিশ্বাস জাগ্রত করতে পেরেছি। নারীরা যে সব কাজে পারদর্শী- তা আমরা প্রমাণ করেছি।” নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে আইনের পাশাপাশি সচেতনতা বাড়ানোর উপরও গুরুত্বারোপ করেন প্রধানমন্ত্রী।

“আমরা হয়তো বেগম রোকেয়ার মতো ‘নারীস্থান’ করতে পারবো না। তবে আমরা নারী ও পুরুষের জন্য সমান স্থান করতে পারবো”, যোগ করেন প্রধানমন্ত্রী।

উল্লেখ্য, রাপা প্লাজার চতুর্থ ও পঞ্চমতলায় ২৪ হাজার বর্গফুট জায়গা জুড়ে গড়ে তোলা হচ্ছে ‘জয়িতা’। ১৬০ থেকে ১৮০টি দোকান করা হবে। গ্রামীণ মেলার আদলে করা হবে এসব দোকান। আশা করা হচ্ছে এর মাধ্যমে তিন বছরে কমপক্ষে ২০ হাজার লোকের কর্মসংস্থান হবে। ২০১৩ সালের জুন মাস পর্যন্ত এ কর্মসূচি পরিচালিত হবে।
মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী শিরীন শারমিন চৌধুরী প্রথম আলোকে জানান, ক্ষুদ্র নারী উদ্যোক্তাদের উৎপাদিত পণ্য বাজারজাতকরণে দালাল বা মধ্যস্বত্বভোগীদের ওপর নির্ভর করতে হয়। ফলে পূর্ণাঙ্গ সুফল পান না নারীরা। ফলে উদ্যোগগুলোও টেকসই হয় না। এসব নারীর জন্য উদ্যোক্তাবান্ধব অবকাঠামো বা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়।
মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, সারা দেশে মহিলা অধিদপ্তরের নিবন্ধন করা সমিতির সদস্যরা এ কর্মসূচিতে অন্তর্ভুক্ত থাকবেন। নির্দিষ্ট সময়ের জন্য ভাড়ার বিনিময়ে তাঁরা স্টল বরাদ্দ পাবেন। এককালীন অফেরতযোগ্য চাঁদা জমা দিয়ে বিপণনকেন্দ্রের সদস্য হবেন। এ কর্মসূচির সফলতার ওপর ভিত্তি করে পরবর্তী সময়ে বিভাগ, জেলা ও উপজেলায় বিপণনসুবিধা সম্প্রসারণ করা হবে।

তথ্যসূত্রঃ কমজগত ডট কম রিপোর্ট ডেস্ক / বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম / বিডি রিপোর্ট 24 ডটকম

About blogger - ব্লগার

একটি উত্তর দিন