ভারতে রফতানি হচ্ছে ব্যান্ডউইডথ

ভারতে রফতানি হচ্ছে ব্যান্ডউইডথ

Cabinate_meetingসাবমেরিন ক্যাবলের অব্যবহৃত ব্যান্ডউইডথ ভারতে রফতানির একটি চুক্তিতে অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা। এতে বাংলাদেশে কোনো সঙ্কট হবে না বলে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। সোমবার সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের এ প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয় বলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা সাংবাদিকদের জানান।
ব্যান্ডউইডথ রফতানিতে ভারত সঞ্চার নিগম লিমিটেড (বিএসএনএল) এবং বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি লিমিটেডের (বিএসসিসিএল) মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হবে। সাবমেরিন ক্যাবলের অব্যবহৃত ব্যান্ডউইডথ বিক্রি করে বার্ষিক কয়েক কোটি টাকা আয় হবে বলে জানা গেছে।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, এ চুক্তি অনুযায়ী ১০ জিবিপিএস (গিগাবাইট পার সেকেন্ড) ব্যান্ডউইডথ বাণিজ্যিক ভিত্তিতে লিজে সরবরাহ করা হবে। এতে বাংলাদেশ বছরে বৈদেশিক মুদ্রায় ৯ কোটি ৪২ লাখ টাকা পাবে (১ দশমিক ২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার)। এ চুক্তির মেয়াদ হবে ৩ বছর। চুক্তি অনুসারে ভারতের চাহিদা অনুযায়ী ব্যান্ডউইডথ রফতানির পরিমাণ ৪০ জিপিবিএস পর্যন্ত করা যাবে।
বাংলাদেশের একমাত্র সাবমেরিন ক্যাবল সি-মি-ইউ-৪ এর কক্সবাজার ল্যান্ডিং স্টেশন থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া হয়ে আগরতলা দিয়ে এ ব্যান্ডউইডথ রফতানি করা হবে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব। তিনি বলেন, বর্তমানে ২০০ জিবিপিএস ব্যান্ডউইডথসহ সাবমেরিন ক্যাবলে (সি-মি-ইউ-৪) সংযুক্ত আছে বাংলাদেশ, যার মধ্যে প্রায় ৩০ জিবিপিএস ব্যবহৃত হচ্ছে। অব্যবহৃত থেকে যায় ১৭০ জিবিপিএস। রফতানির পরও অনেক অব্যবহৃত থেকে যাবে। তিনি বলেন, আসছে বছর ডিসেম্বরে একটি কনসোর্টিয়ামের আওতায় সি-মি-ইউ-৫ বা দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবলে সংযুক্ত হলে বাংলাদেশ অতিরিক্ত ১ হাজার ৩০০ গিগাবাইট ব্যান্ডউইডথ পাবে।
ভবিষ্যতে ইন্টারনেট ব্যবহার বাড়লেও কোনো সঙ্কট হবে না। কারণ দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সংযুক্ত হলে মোট ব্যন্ডউইডথ হবে ১ হাজার ৫০০ জিবিপিএস। ইন্টারনেট সংযোগে যখন আমরা ইউনিয়ন পর্যায়ে যাব, তখনও কোনো সঙ্কট হবে না। ভারতে ব্যান্ডউইডথ রফতানি করে যে অর্থ পাওয়া যাবে, তার এক-চতুর্থাংশ দিয়ে বিএসসিসিএ’র কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন হয়ে যাবে বলেও জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব। তিনি বলেন, এ চুক্তি একটি উইন-উইন সিচুয়েশন। দুই দেশের এতে লাভ হচ্ছে। বাংলাদেশ অব্যহৃত ব্যান্ডউইডথ রফতানি করে বৈদেশিক মুদ্রা পাচ্ছে। ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে খুব সহজেই ইন্টারনেট পাচ্ছে, যে সংযোগ তাদের মুম্বাই থেকে আনতে হতো।
এ চুক্তির জন্য আইনগত ভেটিং এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের মতামত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ১০ জিবিপিএস ব্যান্ডউইডথ নেয়ার পর ভারত যদি চায়, তাহলে ৪০ জিবিপিএস পর্যন্ত রফতানি করা যাবে। পরবর্তীতে ব্যান্ডউইডথের দাম কী হবে- সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি বলেন, এ দর পারস্পরিক পরামর্শে করা হয়েছে। আগামীতে একই প্রক্রিয়ায় দর নির্ধারণ করা হবে।

About Sohel Rana

একটি উত্তর দিন