বিশ্বে প্রথমবারের মতো ব্রেইল ফোন

বিশ্বে প্রথমবারের মতো ব্রেইল ফোন

বিশ্বে প্রথমবারের মতো ব্রেইল ফোন বাজারে নিয়ে আসার দাবি করছে লন্ডনভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ওউনফোন। ব্রেইল ফোনটির পেছন এবং সামনের অংশ তৈরিতে সাহায্য নেওয়া হয়েছে হয়েছে থ্রিডি প্রিন্টিং প্রযুক্তির।

 

থ্রিডি প্রিন্টিং প্রযুক্তির সাহায্য নেওয়ায় ফোনটি নির্মাণ খরচও কম পড়েছে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

এক প্রতিবেদনে সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, বন্ধু ও পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দৃষ্টিশক্তিহীন ব্যবহারকারীদের তাৎক্ষণিক যোগাযোগের সুযোগ করে দিতেই এ ডিভাইসটির ডিজাইন করা হয়েছে।

অতীতে অন্যান্য প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান ব্রেইল ফোন ডিজাইন করলেও ওউনফোনের তথ্য অনুযায়ী, তারাই প্রথম এ ধরনের ফোন বিক্রির উদ্দেশ্যে বাজারে এনেছে।

Braille+phone+goes+on+sale+in+'world+first'

২০১২ সালে আংশিক থ্রিডি প্রিন্টেড ফোন বাজারে নিয়ে এসেছিল প্রতিষ্ঠানটি। তার বছরখানেক পরেই ফাস্টফোন নামে শিশুদের জন্য ক্রেডিট কার্ড আকৃতির ফোনও তৈরি করেছিল ওউনফোন। বিশেষভাবে প্রোগ্রাম করা বাটনের সাহায্যে জরুরি প্রয়োজনে ফোনটি ব্যবহার করতে পারত শিশুরা। প্রতিষ্ঠানটির তৈরি নতুন এ ব্রেইল ফোনটি পূর্ব নির্মিত ফোন দুটির ভিত্তিতেই তৈরি করা হয়েছে বলেই জানিয়েছে বিবিসি।

ভিন্নধর্মী এ ফোন প্রসঙ্গে নির্মাতা টম সান্ডারল্যান্ড জানিয়েছেন, ফোনটিকে দুই-চারটি ব্রেইল বাটনের মাধ্যমে পার্সোনালাইজড করা সম্ভব। প্রি-প্রোগ্রাম করা এ বাটনগুলোর সাহায্যে বন্ধু, পরিবার সদস্য বা জরুরি সেবার জন্য ফোন করা যাবে। স্যান্ডারল্যান্ড আরও জানিয়েছেন, এবারই প্রথম কোনো ফোনে থ্রিডি প্রিন্টেড কিপ্যাড সংযুক্ত করা হয়েছে।

ব্রেইল পড়তে পারেন না এমন ব্যবহারকারীর জন্য ব্রেইল বিন্যাস প্রিন্ট করে টেক্সট হিসেবে ফোনে দেখার ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে এতে। ইতোমধ্যে থ্রিডি ফোন প্রিন্টিং প্রক্রিয়ার জন্য পেটেন্ট আবেদনও করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

বর্তমানে শুধু যুক্তরাজ্যের বাজারেই পাওয়া যাচ্ছে ৬০ পাউন্ড মূল্যের এ ব্রেইল ফোনটি।

About অঞ্জন দেব

একটি উত্তর দিন