বাংলাদেশ আইসিটি এক্সপো শুরু

বাংলাদেশ আইসিটি এক্সপো শুরু

ictআজ সোমবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে দেশে তথ্যপ্রযুক্তির সবচেয়ে বড় আয়োজন বাংলাদেশে আইসিটি এক্সপো- ২০১৫ শুরু হয়েছে। ‘মিট ডিজিটাল বাংলাদেশ’ আহ্বানে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ তিনদিনের মেলা ও প্রদর্শনী উদ্বোধন করেন।
প্রধান অতিথি হিসেবে রাষ্ট্রপতি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বলেন, আইসিটি এক্সপো ২০১৫ দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নকে ত্বরান্বিত করবে। ডিজিটাল বাংলাদেশ ও ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত করতে সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে প্রযুক্তি খাতকে দেশের সবার অংশগ্রহন নিশ্চিত করতে  জনগনকে আইটি সম্পর্কে ধারণা দিতে সরকার বিভিন্ন কমসূর্চী পালন করছে। রাষ্ট্রপতি আরও বলেন, বাংলা গভনেট ও ইনফো সরকার ফেজ-২ প্রকল্পের মাধ্যমে সারাদেশে উপজেলা পর্যায় পর্যন্ত সরকারি অফিসকে একটি অভিন্ন নেটওয়ার্কের আওতায় আনা, সব সরকারি সেবাকে আরো জনবান্ধব করার জন্য এবং আমাদের ইতিহাস, ঐতিহ্যকে আরো ব্যাপক আকাওে প্রচারের জন্য সারাদেশের প্রায় ২৫ হাজার  সরকারি ওয়েবসাইট নিয়ে বিশ্বের বৃহত্তম ওয়েবপোর্টাল “জাতীয় তথ্য বাতায়ন” উদ্বোধন হয়েছে। ১৪ হাজার ৭০০ তরুণকে লার্নিং এবং আর্নিং প্রকল্পের আওতায় তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। সরকার আরও ৫৫ হাজার তরুণকে এই প্রশিক্ষণ দেবে পরবর্তীতে।
ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি(আইসিটি) বিভাগ এবং বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস) যৌথভাবে তিন দিনের এই প্রদর্শনী ও মেলার আয়োজন করেছে।
বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের হল অব ফেমে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, এমপির সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডাক, টেলিযোগাযোগ এবং তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ইমরান আহমেদ, এমপি। স্বাগত বক্তব্য রাখেন আইসিটি সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার, আইসিটি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব হারূন-অর-রশিদ, বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির সভাপতি এএইচএম মাহফুজুল আরিফ, বিসিএসের সহ-সভাপতি ও প্রদর্শনীর আহ্বায়ক মজিবুর রহমান স্বপন প্রমুখ।
আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশীয় প্রযুক্তি শিল্পের টেকসই উন্নয়ন ও সম্ভাবনার প্রতিচিত্র তুলে ধরতেই আমরা এবার ভিন্নমাত্রায় আয়োজন করেছি বাংলাদেশ আইসিটি এক্সপো ২০১৫। তথ্য প্রযুক্তি খাতে বাংলাদেশের সক্ষমতা ও দক্ষতা উপস্থাপনের অনন্য ক্ষেত্র হবে এই এক্সপো। বিশেষ করে হার্ডওয়্যার ও ম্যানুফ্যাকচারিং খাতে অসীম সম্ভাবনা কর্মপ্রচেষ্টা ও রূপকল্পকে নান্দনিক ভাবে উপস্থাপন করবে এই প্রদর্শনী।
তিনি আরো বলেন, জন সচেতনতা সৃষ্টি, তথ্য প্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগ ও বাণিজ্যবান্ধব পরিবেশ তৈরু, তরুণদের অংশগ্রহণ বাড়ানো, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, বৈদাশিক মুদ্রা অর্জনের পথ ও উদ্যোক্তা তৈরু এ প্রদর্শনীর উদ্দেশ্য যার চূড়ান্ত লক্ষ্য ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ বিনির্মাণ ত্বরান্বিত করা
আইসিটি সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার বলেন, দেশীয় তথ্য প্রযুক্তি পণ্য ও সেবার সর্ববৃহৎ আয়োজন আইসিটি এক্সপো-২০১৫। তথ্য প্রযুক্তির অত্যাধুনিক পণ্য ও সেবার উপস্থাপন, উৎপাদক, বিক্রেতা-ক্রেতার মতবিনিময়, বিশেষজ্ঞ ব্যাবহারকারীর মিথস্ক্রিয়া, বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ তৈরীতে জনসচেতনতা বৃদ্ধি ও ব্যাপক বেচাকেনার অবারিত সুযোগ এনে দেবে এ আয়োজন। মেলার আয়োজন সম্পর্কে বিসিএস সভাপতি এএইচএম মাহফুজুল আরিফ বলেন, বাংলাদেশ আইসিটি এক্সপোর মাধ্যমে রূপকল্প ২০২১ এর মধ্যেই প্রযুক্তি বিশ্বে শুরু হোক ‘মেকবাই বাংলাদেশ’ হিসেবে পথচলা।
বিসিএসের সহ-সভাপতি ও প্রদর্শনীর আহ্বায়ক মজিবুর রহমান স্বপন বলেন, আইসিটিএক্সপো-২০১৫ আয়োজনে ইনোভেশন জোন আছে। সেখানে নবীনদের নানা উদ্ভাবন প্রদর্শিত হচ্ছে। এছাড়া গেইমিং প্রতিযোগিতা, রোবট শো, সেলব্রেটি শো হবে এই জোনে। ৫০ হাজার বর্গফুটের এই মেলায় ৪ লাখ দর্শনার্থীর সমাগম হবে।
মেলায় তিন দিনে বিভিন্ন বিষয়ে সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। যার মধ্যে ডিজিটাল ই-হেলথ, হার্ডওয়্যার: চ্যালেঞ্জস অ্যান্ড ওয়ে ফরওয়ার্ড, ক্লাউড কম্পিউটিং: দি ফিউচার, পাওয়ার ব্যাকআপ সলিউশন, ফিউটার টেকনোলজি, ট্রান্সফরমিং এডুকেশন টু ডিজিটাল, আইসিটি ফর বেটার ম্যানজেমেন্টসহ আরও নানা বিষয়ে সেমিনার। যেখানে দেশী-বিদেশী বিভিন্ন স্বনাম খ্যাত তথ্যপ্রযুক্তিবিদগণ আলোচক হিসেবে অংশ নিবেন। প্রদর্শনী চলাকালে ইনোভেশন প্রজেক্ট চ্যাম্পিয়নশিপ, ডিজিটাল ফটো কনটেস্ট, সেলফি কনটেস্ট, গেইমিং কনটেস্ট, সেলিব্রেটি শো, প্রোডাক্ট শো, স্পন্সর আওয়ার নামের নানান সেশন অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়াও প্রতিদিন থাকবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
মেলায় শিশুদের জন্য বিশেষ চিত্রাঙ্কণ প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। বয়সভিত্তিক দুই বিভাগে তোমার ভবিষৎ স্বপের ডিভাইস বিষয়ে অঙ্কণ প্রতিযোগিতা ১৬ জুন বিকাল চারটায় অনুষ্ঠিত হবে।
বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল(বিসিসি), অ্যাকসেস টু ইনফরমেশনের (এটুআই), বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব সফটওয্যার অ্যান্ড ইনফরেমশন সার্ভিস (বেসিস), সিটিও ফোরাম এবং ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (আইএসপিএবি) সহযোগী হিসেবে রয়েছে। মিডিয়া পার্টনার হিসেবে রয়েছে এটিএন বাংলা, দৈনিক সমকাল এবং রেডিও টুডে। মেলার প্লাটিনাম স্পন্সর হিসেবে অংশগ্রহণ করছে ডেল ও এইচপি। গোল্ড স্পন্সর কনিকা মিনোল্টা এবং মাইক্রোল্যাব। সিলভার স্পন্সর হিসেবে থাকছে প্রোলিংক এবং এনআরবি ব্যাংক লিমিটেড।
মেলা ও এক্সপো সম্পর্কে জানতে ভিজিট করুন: www.ictexpo.com.bd
ফেইসবুক পেইজ: ww.facebook.com/BangladeshICTexpo

About Sohel Rana

একটি উত্তর দিন