বরিশালে তিনদিন ব্যাপী ই-বাণিজ্য মেলা শুরু

বরিশালে তিনদিন ব্যাপী ই-বাণিজ্য মেলা শুরু

আজ থেকে শুরু হল তিনদিন ব্যাপী বরিশালে ই-বাণিজ্য মেলা। ‘ঘরে বসে কেনাকাটার উৎসব’ শ্লোগান নিয়ে আয়োজিত এ মেলা বরিশাল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় কমপিউটার জগৎ এবং বরিশাল বিভাগীয় কমিশন যৌথ ভাবে এ মেলার আয়োজন করেছে। আজ সকাল ১১ টায় মেলার শুভ উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি  ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এর মাননীয় সচিব এন আই খান।  ফিতা কেটে তিনি এই মেলার শুভ উদ্বোধন করেন।

মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বরিশাল বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ গাউস এবং প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এন আই খান মাননীয় সচিব, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির যুগ্ম  সচিব শ্যামা প্রসাদ বেপারি, বরিশাল জেলার ডেপুটি কমিশনার মোঃ শহিদুল আলম, এবং সরকারি বিএম কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ফজলুল হক এবং কমজগৎ টেকনোলজিসের প্রধান নির্বাহী মোহাম্মদ আবদুল ওয়াহেদ তমাল।

IMG_2136

প্রধান অতিথি ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এর মাননীয় সচিব বলেন, দেশ প্রযুক্তিতে এগিয়ে যাচ্ছে, দেশে এখন প্রযুক্তি ব্যবহারের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে । তিনি বলেন, দেশের একটি অন্যতম বিভাগীয় শহর বরিশালে ই-বাণিজ্যের প্রসার ঘটলে এই সেক্টরটি অনেকাংশে এগিয়ে যাবে। এখান থেকে দর্শনার্থীরা ই-বাণিজ্য কি, কিভাবে ঘরে বসেই নিজের মোবাইল বা কম্পিউটারের মাধ্যমে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কেনাকাটা করা যায় সেটি জানতে পারবেন। এছাড়া ঘরে বসেই ব্যাংকগুলোর লেনদেন সম্পন্ন করার বিষয়টি জানানোর জন্য এবারের মেলায় অনেকগুলো ব্যাংক অংশগ্রহণ করেছে। এই মেলায় সারাদেশ থেকে ই-বাণিজ্য প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক, সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে অংশগ্রহণের আহবান জানান আইসিটি সচিব। আরো বলেন, পেমেন্ট সিষ্টেম আরো উন্নত করা হবে, যাতে করে খুব সহজেই পেমেন্ট করতে পারে। ই- কমার্সে ডেলিভারী ব্যবস্থা আরো উন্ন্ত করতে হবে, সেজন্য  তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রনালয় কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহন করবে। আরো জানান, বরিশালে খুব দ্রুত হাইটেক পার্ক করা হবে।

বরিশাল বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ গাউস বলেন, তথ্যপ্রযুক্তির অগ্রযাত্রায় মানুষ এখন ঘরে বসেই সব কিছু পেতে চায়। আর এই কাজটিকে সহজ করেছে ই-বাণিজ্য প্রতিষ্ঠানগুলো।  আশা করছি বরিশালে এ মেলা প্রচুর সাড়া ফেলবে। তিনি স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের ই-বাণিজ্য ও ই-সেবা সম্পর্কে ভালোভাবে জানার পরামর্শ দেন।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির যুগ্ম সচিব শ্যামা প্রসাদ বেপারি বলেন, বরিশাল বাংলাদেশের একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ স্থান। এই বাণিজ্য মেলা এখানকার মানুষদের অন-লাইনে ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে আগ্রহী করবে। তিনি আরো বলেন তার এলাকায় এই ধরনের মেলা করার সিন্ধান্ত নেওয়ায় তিনি সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

মেলা উপলক্ষে মেলার আহ্বায়ক মোহাম্মদ আবদুল ওয়াহেদ তমাল বলেন, দেশে ই-কমার্স সম্পর্কে জনসচতেনতা সৃষ্টির লক্ষ্যেই এ মেলার আয়োজন করা হয়েছে।   ঢাকায়, সিলেটে ও চট্রগ্রামে ই-বাণিজ্য মেলা সফল ভাবে সম্পন্ন হওয়ার পর বরিশালে ই-বাণিজ্য মেলা আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তিনি বিগত মেলার সাফল্য তুলে ধরেন। তিনি আরো বলেন, এই মেলার ফলে দর্শনার্থীরা তাদের কেনাকাটা মেলা থেকেই অথবা পরে কিভাবে অনলাইনের মাধ্যমে কেনাকাটা করতে পারবেন সেটি জানার সুযোগ থাকছে। বিভাগীয় পর্যায়ের পর জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে এ মেলা ছড়িয়ে দেওয়া হবে।

Barisal-e-Business-Fair-blog-ad-1

তিনদিনব্যাপি এই মেলায় ই-কমার্সের সঙ্গে জড়িত দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান তাদের পণ্য ও সেবা সাধারণ মানুষের সামনে তুলে ধরছে। মেলায় ৩০টি প্রতিষ্ঠান তাদের পণ্য ও সেবা প্রদর্শন করছে। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে, জাতীয় মহিলা সংস্থা, ই-সুফিয়ানা, সুফিয়ানা, রূপালি ব্যাঙ্ক, এস এস এল কমার্জ, সোনালি ব্যাংক লিঃ, রিকোহ এশিয়া প্যাসিফিক প্রাইভেট লিঃ, টেক ওয়ার্ল্ড, লার্ণিং এন্ড আর্নিং, মৌ-চাষি কল্যাণ সমিতি, ক্রিয়েটিভ আইটি, গিগাবাইট, বাংলালিঙ্ক, আপনজোন.কম, বাংলালায়ন ওয়াইম্যাক্স, অ্যারামেক্স, জবসবিডি.কম, সাত রঙ, ডেপুটি কমিশনার বরিশাল, ডেপুটি কমিশনার বরগুনা, ডেপুটি কমিশনার ভোলা, ডেপুটি কমিশনার  ঝালকাঠি, ডেপুটি কমিশনার  পটুয়াখালী, ডেপুটি কমিশনার পিরোজপুর , সেন্ট- বাংলাদেশ, উপ-পরিচালকঃ প্রাথমিক শিক্ষা, বরিশাল বিভাগ, উপ-পরিচালকঃ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, খামারবাড়ি, পরিচালক, বাংলাদেশ টেলি-কমিউনিকেশন লিঃ,  গ্রামীণফোন এবং কমপিউটার জগৎ। মেলা উপলক্ষে পণ্য ও সেবা ক্রেতাদের জন্য বিশেষ সুযোগ যেমন থাকছে, তেমনি এ বিষয়ে সচেতনতা গড়ে তুলতে বিভিন্ন ধরণের আয়োজন রয়েছে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান তাদের পন্য ক্রয়ে ছাড় ও উপহারের ঘোষনা দিয়েছে।

পণ্য এবং সেবা প্রদর্শনীর পাশাপাশি মেলায় ই-বাণিজ্যের উপরে বিভিন্ন সভা এবং সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে যেখানে আইসিটি সেক্টরের অভিজ্ঞ ব্যক্তিত্বরা মূল প্রবন্ধ পাঠ করবেন।

মেলার প্ল্যাটিনাম ¯পন্সর হলো কমজগৎ টেকনোলজিস, গোল্ড  স্পন্সর ই-সুফিয়ানা, এবং সিলভার স্পন্সর হচ্ছে রিকোহ এশিয়া প্যাসিফিক প্রাইভেট লিঃ। মেলার গেমিং জোন পার্টনার হলো গিগাবাইট, কমিউনিকেশন পার্টনার আপনজোন.কম, মিডিয়া পার্টনার হলো বরিশাল নিউজ এবং ওয়েবটিভি নেক্সট, ক্রিয়েটিভ পার্টনার হলো ক্রিয়েটিভ আইটি, ব্লগ পার্টনার হচ্ছে সামহোয়্যার ইন…ব্লগ, এবং সাতরং সিস্টেমস হচ্ছে মার্কেটিং পার্টনার।

মেলার বিভিন্ন আপডেট পেতে  www.facebook.com/ECommerceFair ঠিকানার পেজ লাইক করতে হবে। এছাড়া মেলার অফিসিয়াল ওয়েবসাইট www.e-commercefair.com  থেকেও জানা যাবে প্রয়োজনীয় তথ্য।

About অঞ্জন দেব

একটি উত্তর দিন