” ফ্রিল্যান্সারদের জন্য ৫ টি অভ্যাস খুবই ক্ষতিকর, জেনেনিন ক্ষতিকারক পাঁচটি অভ্যাস “

” ফ্রিল্যান্সারদের জন্য ৫ টি অভ্যাস খুবই ক্ষতিকর, জেনেনিন ক্ষতিকারক পাঁচটি অভ্যাস “

ফ্রিল্যান্সারদের কাজের সময় অনেক সমস্যার সম্মুক্ষিন হতে হয়, এই সমস্যা শুধু যে অনলাইন ভিত্তিক তা কিন্তু নয়!
শারিরিক দিক থেকেও ফ্রিল্যান্সারদের বিভিন্ন সমস্যার সম্মুক্ষিন হতে হয়, যেমন ধরুণ বিভিন্ন অভ্যাসের চর্চা।
আসুন জেনে নেই ফ্রিল্যান্সারদের প্রধান পাঁচটি সমস্যা ও তার সমাধান !

ফ্রিল্যান্সারদের সময় মত না ঘুমানো

০১. চা/কফিতে আসক্তিঃ

সকালবেলা ঘুম থেকে উঠেই চা/কফি খাওয়া আপনার দৈনন্দিনের অভ্যাস, আপনি কি ভেবে দেখেছেন এটা
আপনার জন্যে কতটুকু সঠিক??? আর যদি এটা করে থাকেন তাহলে আপনি চা/কফিতে নেশা গ্রস্ত। যার ফলে
আপনার সঠিক সময়ে ঘুম নাও হতে পারে বা ঘুম কম হতে পারে।

সমাধানঃ আপনি কাজ শুরু করার আগে ২/৩ কাপ চা/কফি খেয়ে নিতে পারেন, তবে মনে রাখবেন কাপের সাইজটা কিছুটা ছোট রাখবেন।
কেননা, নেশা / অভ্যেস যদি একবারেই ছেড়ে দেন, তাহলে আপনার মস্তিস্ক আপনাকে
অসুস্থ করে তুলবে। তাই কম কম করে খান, ধিরে ধিরে নিজেকে মুক্তি দিন।

০২. ফ্রিল্যান্সারদের সময় মত না ঘুমানো/সময় মত ঘুম থেকে না উঠাঃ

ফ্রিল্যান্সাররা রাত জাগা পাখির মত! কেননা, স্বাভাবিক ভাবেই ফ্রিল্যান্সাররা বিভিন্ন দেশের কাজ করে থাকে,
এইসব দেশের মধ্যে এমন অনেক দেশ থাকে যেসব দেশের সাথে বাংলাদেশের রাত দিনের তফাত!
যার ফলে দেখা যায় যখন বায়াররা সময় পায় তখন বাংলাদেশে রাত থাকে, ফলে কাজের জন্যে বায়ারের
সুবিধার্থে আপনারা জেগে থাকেন । অথবা এমন হয় কাজ জমা দেয়ার সময় হয়ে গেছে অথচ কাজ এখনো শেষ হয়নি!
যার দরুণ আপনি রাত জেগে কাজ করলেন। আর এভাবেই রাত জাগা আপনার অভ্যাসে পরিণত হয়ে গেল ।

সমাধানঃ
আপনার বায়ারের সাথে মিটিং আছে? করেন সমস্যা কি!
কিন্তু মনে রাখবেন একজন মানুষের সুস্থতার জন্য যতটুকু সময় ঘুমানো দরকার সেই সময়টা ঠিক রাখবেন ।
ধরুণ, আজকে রা্তের ২.৩০মিনিটে বায়ারের সঙ্গে মিটিং আছে, আপনি ২.৩০মিনিট থেকে ৩.৩০মিনিট পর্যন্ত মিটিং করে ঘুমালেন ।
তবে পরের দিন সকা্লে ৬ টার বদলে ৯.৩০মিনিটে উঠলেন, এবার খেয়াল করুন আপনার কিন্তু ৬ ঘন্টা ঘুম হয়ে গেলো ।
তবে এটাকে ভুলেও অভ্যাসে পরিণত করবেননা যেন! তাহলে কিন্তু রেজাল্ট জিরো হয়ে যাবে!!!
আবার ধরুণ ২০জুলাই আপনার কাজ জমা দেয়ার সময়, কিন্তু আপনি যদি ২দিন আগেই কাজ শেষ করার টার্গেট নেন
এবং অলসতা না করে কাজটি দ্রুত শেষ করার চেষ্টা করেন তাহলে কিন্তু অনেক দ্রুতই আপনার কাজটি শেষ হয়ে যাবে
বা পুরপুরি শেষ না হলেও আপনার কাছে আরও দুই দিন সময় থাকবে আপনার কাজটি শেষ করার জন্যে ।

ফ্রিল্যান্সারদের ক্ষতিকর অভ্যাস,

০৩. ফ্রিল্যান্সারদের বিষপান বা ধুম্পান করাঃ

ধূমপান করা আর বিষপান করা সমান! এই কথা আমরা কে না জানি???  কিন্তু তারপরেও বিশ্বের প্রত্যেকটি দেশই টোব্যাকো ছড়িয়ে দিচ্ছে সবার কাছে।
তবে খেয়াল করলে আমরা দেখতে পাই বেশির ভাগ ফ্রিল্যান্সারদের অভ্যাস আছে ধুম্পান করার। যার কারণে তারা যতক্ষনই কাজ করে
একটার পর একটা ধুম্পান করতেই থাকেন । অনেক হইছে্রে ভাই এবার ক্ষ্যান্ত দেন!!!

সমাধানঃ আপনি যেসব জায়গায় বাস করেন বা আপনার কাজের স্থানকে ধুম্পান মুক্ত এলাকা ঘোষণা করুন । আপনার ছাইদানিটি ফেলে দিন ডাস্টবিনে ।
এমন জায়গায় নিজের বসবাসের স্থান বা অফিস গড়ে তুলুন যেখানে কোন সিগারেট মামার দোকান খুজে পাওয়া যাবেনা ।
মানুষ অভ্যাসের দাস হলেও আপনার কঠোর ইচ্ছা শক্তিই পারে আপনাকে খারাপ কিছু থেকে মুক্তি দিতে ।
(ভাই মাইন্ড কইরেননা, পরামর্শ দিলাম আরকি! যদি আপনি গ্রহণ করেন! 🙂 )

০৪. ফ্রিল্যান্সারদের হাতে ব্যাথা বা কবজিতে ব্যাথাঃ

যারা কম্পিউটার ব্যবহার করে তাদের জন্যে হাতে ব্যাথা বা কবজিতে ব্যাথা হওয়া একটি স্বাভাবিক ঘটনা । দীর্ঘ সময় মাউস ও কিবোর্ড ব্যবহারের ফলে এমনটি হয়ে থাকে । এমনকি আঙ্গুলেও ব্যাথা হতে পারে ।

সমাধানঃ কিছুক্ষণ পর পর নিজেকে একটু বিশ্রাম দিন এবং হাতের কিছু ব্যায়াম করুন ।

০৫. ফ্রিল্যান্সারদের চোখ জ্বালা পোড়া করাঃ

স্বাভাবিক ভাবে কম্পিউটার ইউজাররা সারাক্ষণ মনিটর এর দিকে তাকিয়ে কাজ করার ফলে এই সমস্যা ঘটে থাকে ।

সমাধানঃ কিছু সময়ের জন্য কাজ বন্ধ করে উঠে যান । আপনি যদি চশমা ব্যবহার কারি হয়ে থাকেন তাহলে খুলে ফেলুন ।
তারপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে হালকা করে চোখ ধুয়ে ফেলুন । এতে করে আপনি স্বস্তিবোধ করবেন ।
এবার আপনি আপনার কাজ চালিয়ে যেতে পারেন ।

About Mahdi Hasan

Mahdi Hasan

One comment

  1. imtiyaz Bin Ahmed

    সময়ত উপজগি লেখা ।। তরুন ফ্রীলাঞ্চারের অনেক কাজে আশবে 🙂

একটি উত্তর দিন