প্রাথমিক স্তরের পাঠ্যবইয়ের ডিজিটাল সংস্করণ হচ্ছে

প্রাথমিক স্তরের পাঠ্যবইয়ের ডিজিটাল সংস্করণ হচ্ছে

primeryপ্রাথমিক স্তরের ৩৪টি পাঠ্যবইয়ের মধ্যে ১৭টি ডিজিটাল সংস্করণে রূপান্তর করছে সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ। আইসিটি বিভাগের উদ্যোগে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি) বাংলাদেশের সিলেবাসের আলোকে এই কর্মসূচী বাস্তবায়ন করছে।
প্রকল্পটির অধীনে ১৭টি বইয়ের মধ্যে পাঁচটি ডিজিটাল সংস্করণে রূপান্তর করছে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা সেভ দ্যা চিলড্রেন এবং বাকি ১২টি বই ডিজিটাল সংস্করণে রূপান্তর করছে ব্র্যাক।
সংস্থা দুটিকে ডিজিটাল সংস্করণে বইগুলো জমা দিতে হবে ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারির মধ্যে। আইসিটি বিভাগের চার কোটি ৯৯ লাখ টাকার অর্থায়নে প্রকল্পটি শুরু হয় ২০১৪ সালে।
সোমবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ের বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) ভবনের আইসিটি বিভাগে আয়োজিত ‘প্রাথমিক শিক্ষা কনটেন্ট ইন্টার-অ্যাক্টিভ মাল্টিমিডিয়া ভার্সনে রূপান্তর ডিজিটাল কনটেন্ট উপস্থাপনা’ শিরোনামের এক আলোচনা অনুষ্ঠানে এসব তথ্য জানানো হয়।
এতে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী অ্যাডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, শিক্ষায় আনন্দ না থাকলে তা ফলপ্রসূ হয় না। তাই শিশুদের জন্য ডিজিটাল ফরম্যাটে আনন্দময় শিক্ষা দিতে এই রূপান্তর দরকার।
মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন আইসিটি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। তিনি বলেন, প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত পাঠ্যপুস্তক ডিজিটাল সংস্করণে রূপান্তর করা হচ্ছে। কেননা প্রাথমিক শিক্ষাকে যদি খুব সহজভাবে শিশুরা বুঝতে পারে তাহলে পরের সময়ে তাদের জন্য শিক্ষা গ্রহণটা আরও সহজ হয়। তাই প্রাথমিক থেকেই শিক্ষা ব্যবস্থাকেও ডিজিটাল করার এই উদ্যোগ।
১৭টি বইয়ের মধ্যে প্রথম শ্রেণীর তিনটি, দ্বিতীয় শ্রেণীর তিনটি, তৃতীয় শ্রেণীর তিনটি, চতুর্থ শ্রেণীর চারটি ও পঞ্চম শ্রেণীর চারটি ডিজিটাল সংস্করণে রূপান্তর করা হচ্ছে।
মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন আইসিটি বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর শিকদার, সেইভ দ্যা চিলড্রেন ও ব্র্যাকের কর্মকর্তারা।

About Sohel Rana

একটি উত্তর দিন