নিরাপদে থাকুক রাউটার

নিরাপদে থাকুক রাউটার

তারহীন নেটওয়ার্ক ওয়াই-ফাইয়ের নিরাপত্তায় পাসওয়ার্ডের ব্যবহার এখন সার্বজনীন। তবুও আশপাশে এখন এত সব স্মার্ট যন্ত্র, সেগুলোর এত এত কৌশল যে নিরাপত্তায় শুধু পাসওয়ার্ড যথেষ্ট না। বাসা বা অফিসের ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক এখন রাউটারকেন্দ্রিক। এটি নিরাপদ রাখার আছে নানা কৌশল।
ওয়াই-ফাই প্রোটেক্টেড সেটআপ: নতুন প্রযুক্তির সব রাউটারে সাধারণত ডব্লিউপিএস বোতাম থাকে। সেটআপ করা সময়টাতে ওয়াইফাই রাউটার নিরাপদ থাকে না। সেটআপের শুরুতে তাই ডব্লিউপিএস বোতাম চাপতে হয়। এতে রাউটারের অ্যাডমিন প্যানেলে ঢোকার আগ পর্যন্ত রাউটার নিরাপদ থাকবে।
নিয়মিত ফার্মওয়্যার হালনাগাদ করুন: পুরোনো রাউটারে নতুন যন্ত্র সংযোগ দেওয়ার ক্ষেত্রে মাঝেমধ্যেই নিরাপত্তাহানির আশঙ্কা হতে পারে। রাউটারটি পুরোনো হলেও নিয়মিত চালক সফটওয়্যার (ড্রাইভার) হালনাগাদ করে এই শঙ্কা কমানো যায়। রাউটারের অ্যাডমিন প্যানেল থেকে সফটওয়্যার হালনাগাদ করার সুযোগ আছে।
মাঝেমধ্যেই পাসওয়ার্ড পাল্টে ফেলুন: রাউটারগুলোতে ফার্মওয়্যার হালনাগাদ করতে প্রতিবার তা বন্ধ করে আবার চালু (রিবুট) করতে হয়। প্রতিবার নতুন পাসওয়ার্ড যোগ করতে ভুলবেন না। নম্বর ও অক্ষরের সমন্বয়ে পাসওয়ার্ড এমন হওয়া উচিত, যা সহজে কেউ অনুমান করতে না পারে। আর নিরাপত্তা সেটআপের ক্ষেত্রে অন্তত WPA-PSK অথবা WPA2 নির্বাচন করুন।
এসএসআইডি বন্ধ করে রাখতে পারেন: কোনো যন্ত্র থেকে ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কে যুক্ত হতে চাইলে নেটওয়ার্কের একটা তালিকা দেখায়। এই তালিকায় যেন আপনার রাউটারের নাম না দেখায় সে জন্য সার্ভিস সেট আইডেন্টিফায়ার (এসএসআইডি) বন্ধ করে রাখুন। এতে বাইরের কেউ যুক্ত হতে পারবে না। আপনি নিজের যন্ত্র যুক্ত করতে চাইলে নাম ও পাসওয়ার্ড দুটোই দিতে হবে।
আইপি ঠিকানা সংরক্ষিত (রিজার্ভেশন) করে রাখুন: আপনার ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কে যুক্ত সবগুলো যন্ত্রের যদি আলাদা আলাদা স্ট্যাটিক আইপি ঠিকানা বরাদ্দ করেন তবে সংযোগের গতি কিছুটা হলেও দ্রুততর হবে। সঙ্গে এটা আরও নিরাপদ হবে, কারণ আপনি দেখতে পাবেন কোন কোন যন্ত্র আপনার নেটওয়ার্কে যুক্ত আছে।
সূত্র: টেকরাডার

About Sohel Rana

একটি উত্তর দিন