দেশে এসারের আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ ট্যাবলেট অবমুক্ত!

দেশে এসারের আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ ট্যাবলেট অবমুক্ত!

বিশ্বের শীর্ষ স্থানীয় পিসি নির্মাতা এসার বাংলাদেশের বাজারে অবমুক্ত করেছে আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ ট্যাবলেট। ১৫ ফেব্রুয়ারি ঢাকার স্থানীয় একটি হোটেলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশী ক্রেতাদের জন্য ২০.৩২ সেন্টিমিটার (৮ ইঞ্চি) এ ট্যাবলেট আনুষ্ঠানিকভাবে অবমুক্ত করে এসার। আইপিএস এবং জিরো এয়ার গ্যাপ প্রযুক্তি দ্বারা চালিত এ ট্যাবলেটে রয়েছে উন্নত স্বচ্ছ ও উজ্জ্বল ছবির সাথে চমৎকার ডিসপ্লে। আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ ট্যাবলেটটিতে ব্যবহার করা হয়েছে উইন্ডোজ ৮.১ এবং ৪র্থ প্রজন্মের ইন্টেল এটম কোয়াড কোর প্রসেসর যা ট্যাবলেটের কার্যকারিতা বাড়িয়ে দিয়েছে বহুগুণ। নতুন এই ট্যাবলেটটিতে ওয়েব ব্রাউজিংয়ে ১০ ঘন্টা ও ভিডিও প্লেব্যাকে ৮ ঘন্টা পর্যন্ত ব্যাটারি লাইফ পাওয়া যাবে।

সহজেই বহনযোগ্য এ ট্যাবলেটটি স্বাচ্ছন্দকর ভিউতে দেখতে পারবেন ব্যবহারকারীরা। আর এ ট্যাবলেটটি পরবর্তী ধাপের মোবাইল প্রোডাক্টিভিটি এবং মিডিয়া কনজাম্পশন নিয়ে এসেছে। আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ ট্যাবলেটটি যেমন পাতলা, তেমন হালকাও বটে। মাত্র ৪১৫ গ্রাম ওজন এবং ১০.৭৫ মিলি মিটার (০.৪২ ইঞ্চি) পাতলা হওয়ায় ট্যাবলেটটি একটি নিখুঁত পোর্টেবল সঙ্গী হতে পারে যে কারো।

Acer Launches Iconia W4 Tablet_Photo_2014 Feb 15_

একটিভ ও প্রফেশনাল ব্যবহারকারীদের কথা চিন্তা করে আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ একটি অসাধারন পোর্টেবল কম্পিউটিং ও এন্টারটেইনমেন্ট ডিভাইস। ট্যাবলেটটির বিল্ট-ইন পোরট্রেইট মোডের ফলে ব্যবহারকারীরা পাবেন সাবলিল ওয়ান-পেজ এক্সপেরিয়েন্স যেখানে তারা বিভিন্ন এ্যাপ্লিকেশন চেক, ওয়েব ব্রাউজিং, ইমেইল পড়া ও ইমেইলের উত্তর দেয়াসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ সাইটে পোস্ট দিতে পারবেন। মাইক্রোসফট অফিস হোম ও স্টুডেন্ট ২০১৩ প্রিলোডেড থাকায় ভার্চুয়ালি যে কোন স্থান থেকে  মাইক্রোসফট ওয়ার্ড, এক্সেল ও পাওয়ারপয়েন্ট ফাইল তৈরি ও এডিট করা যাবে এ ট্যাবলেটটিতে। এক্ষেত্রে একটি পূর্ণ মাপের অপশনাল কিবোর্ড থাকায় অধিকতর পোডাক্টিভ টাইপিংও সম্ভব হবে।

আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ ট্যাবলেটটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করে এসার ইন্ডিয়া’র চিফ মার্কেটিং অফিসার জনাব রাজেন্দ্রান বলেন, ‘বাংলাদেশে ক্রেতাদের জন্য আমাদের সর্বশেষ প্রযুক্তির ডিভাইস আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ অবমুক্ত করতে পেরে এসার সত্যিই আনন্দিত। জিরো এয়ার গ্যাপ প্রযুক্তি ব্যবহারের কারণে এ ডিভাইসটি ব্যবহারকারীদের এত নিখুঁত ছবি প্রদান করবে যে সরাসরি সূর্যের আলোতেও এরা সর্বোচ্চ গুণগতমানের ছবি পাবেন। এক কথায় আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ ট্যাবলেটটি ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী পাতলা, দ্রুত গতির ও হালকা ওজনের কাঙ্খিত একটি কম্পিউটিং ডিভাইস।

এক্সিকিউটিভ টেকনোলজিস লিমিটেডের জেনারেল ম্যানেজার জনাব সালমান আলী খান বলেন, আমরা বিগত অনেক বছর ধরে এসারের সাথে সম্পৃক্ত এবং বাংলাদেশে এসারের ব্যবসা সফলভাবে পরিচালনায় অংশ নিয়ে আমরা আনন্দিতও বটে। আমাদের বিস্তৃত পার্টনার নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ক্রেতাদের জন্য পুরো দেশ ব্যাপী আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ ট্যাবলেটটির সহজলভ্যতা নিশ্চিত করা হবে। তিনি আরো বলেন, উদ্ভাবনের দিক থেকে এসারের ডিভাইসগুলো সর্বদাই বেঞ্চমার্ক নির্ধারণ করে এবং আমরা নিশ্চিত যে এসারের সর্বশেষ প্রযুক্তির এ ট্যাবলেটটিও ক্রেতাদের মাঝে ব্যাপক সাড়া ফেলবে।

বাংলাদেশে ইন্টেলের কান্ট্রি বিজনেস ম্যানেজার জনাব জিয়া মনজুর বলেন, ইন্টেলের এটম প্রসেসর জেড৩৭৪০ ভিত্তিক ডব্লিউ ৪ ট্যাবলেটটি আনুষ্ঠানিকভাবে অবমুক্ত করায় আমরা এসারকে অভিনন্দন জানাই। সিলভারমন্ট মাইক্রোআর্কিটেকচার ভিত্তিক ইন্টেল এটম প্রসেসর দ্বারা চালিত এসার আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ ট্যাবলেটটি ক্রেতাদের জন্য অধিকতর সুবিধাজনক কম্পিউট ও গ্রাফিক্স পারফরমেন্স এবং ব্যাটারি লাইফের এক অসাধারন সমন্বয় উপহার দিচ্ছে।

মাইক্রোসফট বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার জনাব পুবুদু বাসনায়েকে বলেন, উইন্ডোজ ৮.১ অপারেটিং সিস্টেম দ্বারা চালিত আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ ট্যাবলেটটি প্রযুক্তি উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে নতুন দিগন্তের সৃষ্টি করেছে। বাসা, কর্মক্ষেত্র, এমনকি চলার পথে সর্বত্রই আমরা যে ডিভাইসগুলো ব্যবহার করি উইন্ডোজ ৮.১ তার সবগুলোকেই একত্রিত করেছে এবং এ ডিভাইসটিকে আপনার একটি ইউনিক এক্সটেনশন সৃষ্টি করেছে। এছাড়া এটি আপনার জীবনকে গতিময় রাখতে অনেক বেশি উপায়ও উপহার দিচ্ছে।

দাম ও প্রাপ্যতা:
ওয়াইফাই মডেলের ৩২ গিগাবাইটের আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ ট্যাবলেটটির মূল্য ২৯৮০০ টাকা এবং ৬৪ গিগাবাইটের ট্যাবলেটটির মূল্য ৩২৮০০ টাকা। এছাড়া থ্রিজি মডেলের ৩২ গিগাবাইটের আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ ট্যাবলেটটির মূল্য ৩৪৮০০ টাকা এবং ৬৪ গিগাবাইটের ট্যাবলেটটির মূল্য ৩৭৮০০ টাকা। আগামী মাস থেকে দেশের সর্বত্র এসার মল ও এসার চ্যানেল পার্টনার আউটলেটগুলোতে নতুন এ ট্যাবলেটটি পাওয়া যাবে।

এসার সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানা যাবে www.acer.com ওয়েবসাইট থেকে।

আইকোনিয়া ডব্লিউ ৪ ট্যাবলেটে রয়েছে,  ৪র্থ প্রজন্মের ইন্টেল এটম ১.৮ গিগাহার্জ কোয়াড কোর প্রসেসর, ১২৮০ x ৮০০ পিক্সেল রেজ্যুলুশনের সাথে ১৬:১০ রেশিও, সামনে ২ মেগাপিক্সেল এবং অটো ফোকাসসহ পেছনে ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা, কানেক্টিভিটি অপশন – এইচডিএমআই পোর্ট এবং মাইক্রো ইউএসবি পোর্ট,  ৩২ জিবি অথবা ৬৪ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ ,মাইক্রো এসডি’র মাধ্যমে ৩২ জিবি স্টোরেজ ক্যাপাসিটি।

About অঞ্জন দেব

একটি উত্তর দিন