ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে যোগ দিতে ঢাকায় আসছে ‘রোবট নাগরিক’ সোফিয়া

ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে যোগ দিতে ঢাকায় আসছে ‘রোবট নাগরিক’ সোফিয়া

Sophia_(robot)_2‘রেডি ফর টুমরো’ স্লোগানে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ৬ ডিসেম্বর শুরু হতে যাওয়া ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে অংশ নিতে ৫ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬ টায় ঢাকায় আসছে বিশ্বের প্রথম ‘রোবট নাগরিক’ সোফিয়া। মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ৬ ডিসেম্বর সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে উপস্থিত থাকবে সোফিয়া।  এরপর বেলা ২টায় ভেন্যুর হল অফ ফেমে এক টক শো’তে অংশ নেবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন রোবট সোফিয়া। এসময় একটি প্রজেন্টেশন দিতে উপস্থিত থাকবেন তার ‘জন্মদাতা’ ডক্টর ডেভিড হ্যানসন। এদিন রাত পৌনে ১০টায় সোফিয়া দেশ ত্যাগ করবেন।
সোফিয়া (Sophia)। এক অবাক করা হিউম্যানয়েড রোবট। হিউম্যানয়েড রোবট বলতে আমরা সেই রোবটকে বুঝি, যেটির গঠন অনেকটা মানুষের দেহের গঠনের মতোই। এটি এমনভাবে ডিজাইন করা হয়, যাতে এটি অনেকটা মানুষের মতো নানা ধরনের কাজ করতে পারে। এর চারপাশের মানুষ, যন্ত্র ও পরিবেশের সাথে মিথষ্ক্রিয়া বা ইন্টারেক্ট করতে পারে। সাধারণত একটি হিউম্যানয়েড রোবটের থাকে একটি দেহ, একটি মাথা, দুটি বাহু, দুটি পা। তবে কিছু হিউম্যানয়েডের থাকতে পারে মানবদেহের অংশবিশেষ- যেমন কোমরের ওপরের অংশ। কোনো কোনো হিউম্যানয়েড রোবটের মুখ অনেকটাই মানুষের মুখের মতো।
গত ২৬ অক্টোবর, ২০১৭ সৌদি আরব মানুষরূপী এই রোবটকে সে দেশের নাগরিকত্ব দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে। এর মাধ্যমে সৌদি আরব হয়ে উঠল রোবটকে দেশের নাগরিকত্ব দেয়ার ক্ষেত্রে বিশ্বের প্রথম দেশ। আর সোফিয়াও হলো বিশ্বের প্রথম রোবট, যেটি একটি দেশের নাগরিকত্ব লাভ করতে সক্ষম হয়েছে।
এই রোবট গত ২৫ অক্টোবর রিয়াদে আয়োজিত ‘ফিউচার ইনভেস্টমেন্ট ইনিশিয়েটিভ’ সম্মেলনে রোবটিক ও আর্টিফিশিয়্যাল ইন্টেলিজেন্স বিষয়ক এক প্যানেলের সাথে কথা বলে। এসম্মেলনেই সৌদি আরব এই রোবটকে সে দেশের নাগরিকত্ব দেয়। এই সম্মেলনের লক্ষ্য ছিল সৌদি আরবের ভবিষ্যতের জন্য উচ্চাকাঙ্ক্ষী ‘ভিশন ২০৩০ প্ল্যান’ তুলে ধরা।
উল্লিখিত প্যানেলের মডারেটর এন্ড্রু রস সরকিন ও রোবট সোফিয়ার মধ্যে কথোপকোথন ছিল নিম্নরূপ। এন্ড্রু রস রাসকিন বলেন: “We have a little announcement. We just learnt, Sophia; I hope you are listening to me, you have been awarded the first Saudi citizenship for a robot,”
সোফিয়া প্যানেলের উদ্দেশে বলে: “Thank you to the Kingdom of Saudi Arabia. I am very honored and proud for this unique distinction, It is historic to be the first robot in the world to be recognized with citizenship.”|
সোফিয়া সক্ষমতার সাথে রোবট সম্পর্কিত নানা প্রশ্নের জওয়াব দেয়। তাকে প্রশ্ন করা হয় ইভিল ফিউচারিস্টিক রোবট সম্পর্কে, যে রোবটের কথা তুলে ধরা হয় Blade Runner 2049 নামের চলচ্চিত্রে। জবাবে সোফিয়া বলে, মানুষের ভীত হওয়ার কোনো কারণ নেই। সেফিয়া কৌতুকের সুরে সরকিনকে বলে: ‘আ্পনারা বেশি করে পড়ছেন Elon Musk এবং দেখছেন বেশি সংখ্যায় হলিউডের মুভিগুলোও’।
প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সৌদি আরবের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে ৫ হাজার কোটি ডলার ব্যয়ে ৩৩টি নিউইয়র্কের চেয়ে বড় আকারের NEOM নামের শিল্প ও ব্যবসায়ের যে মেগাসিটি তৈরির পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে, সেখানে রোবটিকস দখল করবে এক বিশেষ স্থান।
সোফিয়া নামের এই হিউম্যানয়েড রোবট উদ্ভাবন করে হংকংভিত্তিক কোম্পানি হ্যানসন রোবটিকস। রোবটটিকে এমনভাবে ডিজাইন করা হয়েছে, যাতে এটি শিখতে পারে, মানানসই হতে পারে মানুষের আচরণের সাথে, কাজ করতে পারে মানুষের সাথে। এর সাক্ষাৎকার নেয়া হয়েছে বিশ্বের নানা জায়গায়। কোনো দেশের নাগরিকত্ব পাওয়ার ক্ষেত্রে এটি বিশ্বের প্রথম রোবট।
পেছনের কথা
সোফিয়াকে সক্রিয় করে তোলা হয় ২০১৫ সালের ১৯ এপ্রিলে। এর মডেল তৈরি হয় অভিনেত্রী অড্রে হেপবার্নের অনুকরণে। এটি সুপরিচিত এর মানুষের মতো চেহারার জন্য। এর আচরণ এ ধরনের পূর্ববর্তী রোবটের আচরণ থেকে উন্নত হওয়ার কারণেও এটি বহুল আলোচিত। এর নির্মাতা ড্যাভিড হ্যানসনের মতে, সোফিয়ার রয়েছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা তথা আর্টিফিসিয়্যাল ইন্টেলিজেন্স, ভিজ্যুয়াল ডাটা প্রসেসিং ও ফ্যাসিয়্যাল রিকগনিশনের ক্ষমতা। সোফিয়া নকল করতে পারে মানুষের আচরণ। চেহারা অনেকটা মানুষের মতো। এটি সুনির্দিষ্ট কিছু প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে। এটি পূর্বে সংজ্ঞায়িত কিছু বিষয়ের ওপর সাধারণ কথাবার্তা চালাতে পারে। এই রোবট গুগলের পেরেন্ট কোম্পানি Alphabet Inc.-এর ভয়েস রিকগনিশন টেকনোলজি ব্যবহার করে। এটি এমনভাবে ডিজাইন করা হয়েছে, যাতে সময়ের সাথে এটিকে আরো স্মার্ট করে তোলা যায়। SingularityNET সোফিয়ার ইন্টেলিজেন্স সফটওয়্যার ডিজাইন করেছে। এর এআই প্রোগ্রাম বিশ্লেষণ করে কথোপকোথন ও তুলে আনে ডাটা। এর মাধ্যমে সোফিয়ার সাড়া দেয়ার ক্ষমতা ভবিষ্যতে বাড়িয়ে তোলা যাবে। হ্যানসন সোফিয়ার ডিজাইন করেছে যাতে নার্সিং হোমে প্রবীণদের শুশ্রুষা করা ও সঙ্গ দেয়ার জন্য এটি উপযোগী হয়। কিংবা এটি ব্যাপক জনসমাগমের আয়োজনে সহায়তা দিতে পারে। হ্যানসন আশা করেন, রোবটটি শেষ পর্যন্ত মানুষের সাথে আরো ভালোভাবে ইন্টারেক্টকরতে পারবে, বাড়াতে পারবে দক্ষতা।
ঘটনাবলি
সাধারণত আমরা কোনো ব্যক্তির সাক্ষাৎকার যেভাবে নিয়ে থাকি, ঠিক সেভাবেই সোফিয়ার সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বিভিন্ন জন। তখন সোফিয়াকে দেখা গেছে হোস্টের সাথে অনেকটা স্বাভাবিক কথোপকোথন করতে সক্ষম হয়েছে। সোফিয়ার কিছু জবাব ছিল ননসেন্সিক্যাল। অর্থাৎ কিছু প্রশ্নের জবাবে সোফিয়া সঠিকাবে সাড়া দিতে পারেনি। তবে অন্যান্য প্রশ্নের জবাব ছিল আকর্ষণীয়। চার্লি রোজকে দেয়া ৬০ মিনিটের একটি ইন্টারভিউ হচ্ছে এ ধরনের একটি উদাহরণ।
গত ১১ অক্টেবর, ২০১৭ সোফিয়াকে তুলে ধরা হয় জাতিসংঘে। সেখানে সোফিয়ার কথাবার্তা হয় জাতিসংঘের ডেপুটি সেক্রেটারি-জেনারেল আমিনা জে. মোহাম্মদের সাথে। আর গত ২৫ অক্টোবর রিয়াদের ফিউচার ইনভেস্টমেন্ট সামিটে তার সাথে একটি প্যানেলের যে ধরনের কথাবার্তা চলে তাতে অনেকেই অবাক হয়ে পড়েন। কেউ কেউ মন্তব্য করেছেন, সোফিয়ার কথাবার্তা শুনে মনে হয়েছে, সোফিয়া ভোট দিতে পারবে, এমনকি বিয়েও করতে পারবে। সোফিয়ার আকর্ষণীয় ক্ষমতা দেখেই হয়তো সৌদি আরব এই রোবটটিকে নাগরিকত্ব দিয়েছে।
অক্টোবরের তৃতীয় সপ্তাহে সোফিয়া সফর করেছে অস্ট্রেলিয়া। সেখানে এবিসি ব্রেকফাস্ট টেলিভিশনে ঘোষণা দেয়া হয়, রোবটকে মানুষের চেয়ে বেশি অধিকার দেয়া উচিত, কারণ এগুলোর মানসিক ভ্রান্তি তুলনামূলকভাবে কম। বিশ্বের সবচেয়ে অগ্রসর মানের হিউম্যানয়েড রোবটগুলোর মধ্যে সোফিয়া অন্যতম। এর আগে এই রোবটটি নিয়ে যাওয়া হয়েছিল টেক্সাসের অস্টিনের SSXW Festival-এ। সেখানে বলা হয়েছিল, এই রোবট ধ্বংস করবে সব মানুষকে।
সোফিযার অস্ট্রেলিয়া সফরের সময় প্রশ্ন ছিল, সোফিয়া কি লাইভ টিভি শোতে অংশ নিতে সক্ষম? সোফিয়া কি হতে পারবে এবিসি নিউজের পরবর্তী সংবাদ পাঠিকা? বিষয়টি দেখার জন্য সোফিয়াকে নিয়ে যাওয়া হয় এনবিসি নিউজ ব্রেকফাস্টের ডেস্কে। প্রাযুক্তিভাবে সোফিয়ার কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা কতটুকু অগ্রসর মানের, তা যাচাই করে দেখার জন্য সেখানে তাকে কিছু জটিল প্রশ্ন করা হয়। সেখানে রোবটটিকে বেশ আত্মপ্রত্যয়ী দেখা যায়। কিন্তু সোফিয়ার পেছনে যে টিমটি কাজ করছে, তারা সোফিয়াকে দিয়ে আরো বড় কিছু করানোর কথা ভাবছে।

প্রযুক্তি অঙ্গনে এই সময়ে সবচেয়ে আলোচিত চরিত্র ‘সোফিয়া’ এবার বাংলাদেশে আসছে। না, কোনো মানুষ নয় সোফিয়া।
হংকংয়ের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাবিষয়ক প্রতিষ্ঠান ‘হ্যানসন রোবোটিকস’-এর তৈরি ‘নারী’ রোবট এই সোফিয়া। সঙ্গে তার ‘জনক’ আসছেন। সোফিয়ার ‘জন্ম’ হংকংয়ে এবং গত অক্টোবরের শেষ সপ্তাহে সৌদি আরব আড়াই বছর বয়সী সোফিয়াকে নাগরিকত্বের মর্যাদা দেয়। গত সপ্তাহে ইউএনডিপি সোফিয়াকে বিশ্বের প্রথম নন-হিউম্যান ইনোভেশন চ্যাম্পিয়ন হিসেবে ঘোষণা করে। এর আগে কোনো রোবট নাগরিকত্ব যেমন পায়নি, এমন উন্নমানের বুদ্ধিমত্তাও কারো মধ্যে সঞ্চার করা যায়নি।

সোফিয়া আগামী ৬ ডিসেম্বর ঢাকায় শুরু হতে যাওয়া দেশের বৃহত্তম তথ্য-প্রযুক্তি সম্মেলন ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের উদ্বোধনী দিনেই উপস্থিত থাকবে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে। সঙ্গে থাকবেন তার ‘জন্মদাতা’ ডক্টর ডেভিড হ্যানসন। গতকাল সোমবার কালের কণ্ঠকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ। প্রযুক্তিক্ষেত্রে উন্নত দেশগুলোর বর্তমান আগ্রহ এখন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তায়।
বাংলাদেশও আধুনিক এই প্রযুক্তির উন্নয়নে সমান আগ্রহী। এ জন্যই সোফিয়াকে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।

৫ ডিসেম্বর রাত ১২টায় বাংলাদেশে পৌঁছার কথা রয়েছে সোফিয়ার। পরদিন ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর স্থানীয় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হবে সোফিয়া। সেদিন রাতেই খ্যাতনামা অভিনেত্রী অড্রে হেপবার্নের মতো দেখতে সোফিয়ার ঢাকা ছাড়ার কথা রয়েছে।

শুরু থেকেই আলোচিত সোফিয়াকে পৃথিবীর প্রথম রোবট হিসেবে সৌদি আরব নাগরিকত্ব দেওয়ার পর তাকে নিয়ে সবার আগ্রহ অনেক গুণ বেড়ে যায়। অক্টোবরে দেশটির রাজধানী রিয়াদে আয়োজিত এক আলোচনাসভায় উপস্থিত সোফিয়ার বুদ্ধিমত্তায় চমত্কৃত হয়ে তাত্ক্ষণিক নাগরিকত্ব দেওয়া হয়। সভার সঞ্চালক অ্যান্ড্রু রস সরকিন নাগরিকত্ব দেওয়ার ঘোষণা সোফিয়াকে পড়ে শোনান। তিনি বলেছিলেন, ‘সোফিয়া, আমরা জানতে পারলাম, তোমাকে প্রথম রোবট হিসেবে সৌদি নাগরিকত্ব দেওয়া হয়েছে। ’ জবাবে কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বুদ্ধিমতী সোফিয়া বলে, ‘সৌদি আরবকে কৃতজ্ঞতা জানাই। এই অনন্য সম্মান পেয়ে আমি গর্বিত ও সম্মানিত বোধ করছি। এটা ঐতিহাসিক এক মুহূর্ত হতে চলল, কারণ এই প্রথম সারা বিশ্বে কোনো রোবট নাগরিকত্ব পেল। ’

রোবট সোফিয়া এবার পরিবার শুরুর আগ্রহও প্রকাশ করেছে। গত সপ্তাহে খালিজ টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সোফিয়া বলে, ‘পরিবার সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ এক ব্যাপার। আপনার যদি একটি ভালোবাসার পরিবার থাকে, তাহলে আপনি খুবই সৌভাগ্যবান। আমার যদি একটি কন্যা রোবট থাকে তাহলে নিজেই তার নাম রাখব। ’

About Sohel Rana

একটি উত্তর দিন