কৃষি খাত উন্নয়নে মোবাইল ফোন প্রযুক্তি

কৃষি খাত উন্নয়নে মোবাইল ফোন প্রযুক্তি

কৃষকের ক্ষমতায়নে মোবাইল ফোন প্রযুক্তি কীভাবে কাজে লাগানো  যায়,  তা নিয়ে রবির করপোরেট হেড অফিসে অনুষ্ঠিত হলো কৃষি ও প্রযুক্তিবিষয়ক কর্মশালা। কর্মশালায় কৃষক ও কৃষি-সংশ্লিষ্টদের মধ্যে সংযোগ স্থাপন এবং তাদের মধ্যে একটি জোরালো সম্পর্ক উন্নয়নে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি কীভাবে কাজে লাগানো যায়, তার ওপর আলোকপাত করা হয়।

তথ্যের সহজলভ্যতা কৃষকদের জীবনমান ও ব্যবস্থাপনায় পরিবর্তন আনার বিষয়ে বক্তব্য দেন আইএফপিআরআইয়ের সিনিয়র রিসার্স স্টাফ রিকার্ডো হার্নান্দেজ, জিএসএমএর টেকনিকেল প্রোগ্রামে-এমএগ্রির কনসালটেন্ট মোহাম্মদ আশরাফুজ্জামান, সুইস কন্টাক্টের আশফাক এনায়েতুল্লাহ, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (বিডব্লিউডিবি) ব্লু গোল্ড প্রোগ্রামের কোমপোনেন্ট লিডার হেইন বিজলমেকারস, ওয়ার্ল্ড ফিশের চিফ অব পার্টি হেনড্রিক জন কিউস, ইনসিড বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট সায়েন্সের অধ্যাপক ড. ফিলিপ এম পার্কার এবং মাইয়াকির সিইও তারো আরায়া।

image_55698_0
অনুষ্ঠানে রবির চিফ মার্কেটিং অফিসার প্রদীপ শ্রীবাস্তব বলেছেন, কৃষি ও গ্রামীণ উন্নয়নে মোবাইল ফোনের প্রভাব তুলে ধরতেই এই আয়োজন। তিনি বলেছেন, “রবি অন্যতম অপারেটর হিসেবে প্রয়োজনীয় তথ্য ও পরামর্শ মানুষের হাতের নাগালে নিয়ে এসেছে, যা গ্রামীণ বাংলার ক্ষমতায়ন এবং লাখ লাখ কৃষকের কর্ম ও জীবনমান উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে। আবহাওয়া ও ফলন নিয়ে সমকালীন তথ্য কৃষকের জীবন বদলে দিতে পারে।”

কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ফ্রান্সের ইনসিড বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট সায়েন্সের অধ্যাপক ড. ফিলিপ এম পার্কার। তিনি বলেন, “কৃষকরা যখন সহজলভ্য ও ব্যবহারবান্ধব প্রযুক্তির মাধ্যমে সহজে ও কম খরচে তথ্য পাবে, তখনই দীর্ঘমেয়াদে এ ক্ষেত্রে একটি স্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি হবে।”

About বদরুদ্দোজা মাহমুদ তুহিন

একটি উত্তর দিন