কিম ডটকমের অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে

কিম ডটকমের অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে

কপিরাইট লঙ্ঘনের দায়ে বন্ধ হয়ে যাওয়া অনলাইন কনটেন্ট শেয়ারিং সাইট মেগা আপলোডের প্রতিষ্ঠাতা কিম ডটকমের বিরুদ্ধে মামলার শুনানি চলছে নিউজিল্যান্ডে। তার বাড়ি থেকে তাকে যখন আটক করা হয়, তখন পুলিশ তাকে মারপিট করেছিল বলে আদালতে অভিযোগ করেছেন তিনি।

জালিয়াতির দায়ে যুক্তরাষ্ট্রের পুলিশের অনুরোধে নিউজিল্যান্ডের পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। জার্মান বংশোদ্ভূত কিম ডটকমকে নিউজিল্যান্ড থেকে যুক্তরাষ্ট্রে হস্তান্তরের জন্য আইনি লড়াই চলছে। জানুয়ারিতে আটক করা হয় তাকে। গত সপ্তাহে তিনি আদালতকে জানান, নিউজিল্যান্ডের পুলিশ  হেলিকপ্টারে করে যখন তার বাড়িতে প্রবেশ করে, তখন তিনি অনেক ভয় পেয়ে যান। বাইরে পুলিশের চিত্কার-চেঁচামেচি শুনে নিজেকে রক্ষার চেষ্টা করেন।

আদালতে ডটকম বলেন, ‘আমাকে তারা খুঁজে বের করার পর ঘুষি-লাথি মেরে মেঝেতে শুইয়ে দেয়। আমি ব্যথায় চিত্কার করতে থাকি। তার পরও তারা থামেনি। তারা অনবরত আমাকে মারছিল।’

যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (এফবিআই) কর্তৃপক্ষ নিউজিল্যান্ড পুলিশকে অনুরোধ করলে অকল্যান্ডে তার বাড়ি থেকে আটক করা হয় কিমকে। এর পর তার বাড়ি থেকে অপরাধের প্রমাণস্বরূপ কম্পিউটারসহ বিভিন্ন যন্ত্রপাতি ও বিলাসবহুল বেশ কয়েকটি গাড়ি আটক করে পুলিশ। ডটকম ও অন্য তিনজনকে আটক করে পুলিশ। ডটকমকে এক মাস পুলিশের কাছে আটক রাখার পর জামিন দেয়া হয়।

আটক করা জিনিসগুলোর ব্যাপারে আদালত এখনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। এফবিআই জানিয়েছে, ডটকম ও তার চক্র অবৈধভাবে ১৭ কোটি ৫০ লাখ ডলার হাতিয়ে নিয়েছে। ২০০৫ সাল থেকে মেগাআপলোডের মাধ্যমে মিউজিক, মুভিসহ অন্যান্য ডিজিটাল কনটেন্ট শেয়ারিংয়ের সুযোগ দিয়ে আসছিল। এ বছরের শুরুতেই বন্ধ করে দেয়া হয়েছে সাইটটি। কিমের আইনজীবী জানিয়েছেন, মেগাআপলোড অবৈধ কোনো কাজ করেনি। তারা শুধু অনলাইন স্টোরেজের সুবিধা দিয়ে আসছিল।

মামলাটির শুনানি আজ শেষ হচ্ছে। এর পরই সিদ্ধান্ত হবে, কিমকে যুক্তরাষ্ট্রে ফেরত পাঠানো হবে কি না।
সূত্র-রয়টার্স

About বিদ্যুৎ বিশ্বাস

একটি উত্তর দিন