কালিয়াকৈরে বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম ফোর টায়ার ডেটা সেন্টার প্রকল্প অনুমোদন

কালিয়াকৈরে বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম ফোর টায়ার ডেটা সেন্টার প্রকল্প অনুমোদন

ECNEC-meetingসোহেল রানা: ন্যাশনাল ফোর টায়ার ডেটা সেন্টার প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে সরকার। মঙ্গলবার শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় প্রায় ১ হাজার ৫১৭ কোটি টাকার ‘ফোর টায়ার জাতীয় ডেটা সেন্টার স্থাপন’ প্রকল্পের চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়। সর্বাধুনিক তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) ব্যবহারের মাধ্যমে জনপ্রশাসনে দক্ষতা, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করতে এই ডেটা সেন্টার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। গাজীপুরের কালিয়াকৈরে এ ডেটা সেন্টার স্থাপন করা হবে।
একনেক পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, “দেশে বর্তমানে থ্রি টায়ার জাতীয় ডেটা সেন্টার রয়েছে। কিন্তু এটা পর্যাপ্ত নয়। এজন্যই কালিয়াকৈর হাইটেক পার্কে সাত একর জমির উপর ফোর টায়ার জাতীয় ডেটা সেন্টার স্থাপিত হবে। এ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে সরকারি সব কাজ পেপারলেস হবে বলে আশা করছি।” প্রকল্পের কার্যপত্রে লেখা হয়েছে, “জনপ্রশাসনে আইসিটি সিস্টেম ব্যবহারের মাধ্যমে দক্ষতা, সচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করে জনগণের দোরগোড়ায় তথ্যপ্রযুক্তির সেবা পৌঁছে দিতেই প্রকল্পটি গ্রহণ করা হযেছে।
“জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, ভূমি মন্ত্রণালয়, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং বিদ্যুৎ বিভাগের ডিজিটালাইজেশনের জন্য ডেটা সেন্টারের সেবার চাহিদা রয়েছে। এসব দিক বিবেচনায় প্রকল্পটি হাতে নেওয়া হয়েছে। মূল অর্থায়ন করবে চীন।”
চলতি অর্থবছরে প্রকল্পের বাস্তবায়ন শুরু হয়ে ২০১৮ সালের জুনের মধ্যে শেষ করার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রকল্প বাস্তবায়ন নিয়ে এরইমধ্যে চীনের জেডটিই করপোরেশনের সঙ্গে কম্পিউটার কাউন্সিলের একটি চুক্তি হয়েছে। প্রকল্পে সরকারের তহবিল থেকে ৩১৬ কোটি টাকা দেওয়া হবে।
ক্লাউড কম্পিউটিং ও জি-ক্লাউড প্রযুক্তির বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম এই ডেটা সেন্টার নির্মিত হবে কালিয়াকৈর হাইটেক পার্কে নতুন করে যুক্ত হওয়া ৯৭ একর ভুমি থেকে নেয়া ২০ একরের উপর। এতে ১ হাজার ৫১৬ কোটি ৯১ লাখ টাকার মধ্যে সরকার ৩১৭ কোটি ৫৫ লাখ এবং অবশিষ্ট ১ হাজার ১৯৯ কোটি ৩৬ লাখ টাকা দেবে চীনের এক্সিম ব্যাংক। গত ১১ মার্চ এই ডেটা সেন্টার নির্মাণে জেডটিই কর্পোরেশনের সাথে চুক্তি স্বাক্ষরের অনুমোদন দিয়েছিল সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।

About Sohel Rana

একটি উত্তর দিন