কল সেন্টারই হবে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অন্যতম হাতিয়ার

কল সেন্টারই হবে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অন্যতম হাতিয়ার

তারুণ্যই শক্তি, তারুন্যেই অর্থনৈতিক মুক্তি। তাই তরুণদের সাফল্যগাথাঁ দেখতে আমি ছুটে এসিেছ। কিভাবে তারা কাজ করছে, কিভাবে তাদেঁর মেধা ও শ্রমের ওপর দাড়িঁয়ে ২০২১ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে আমরা বাংলাদেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে রূপান্তরের স্বপ্ন দেখছি, তা সশরীরে দেখতে এবং তাদের সাথে নলেজ শেয়ারিংয়ের মাধ্যমে এ শিল্পের বাঁধা ও প্রতিবন্ধকতকা দূর করতে আমার এ পরিদর্শন।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্মেদ পলক আজ দুপুরে ডিজিকন লজিস্টিকস্ লিমিটেড পরিদর্শনে গিয়ে এ কথা বলেন। মাননীয় প্রতিমন্ত্রী এ সময় বলেন,“ ২০২১ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে বাংলাদেশকে  একটি মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করতে আমরা বদ্ধ পরিকর এবং সরকারের নিরলস সহযোগিতার ফলে, অনেক প্রতিবন্ধকতার মধ্য দিয়েও  আউটসোর্সিং এগিয়ে যাচ্ছে। কারণ আমাদের তরুণরা মেধাবী ও দক্ষ।” মাননীয় প্রতিমন্ত্রী এ সময় আরো বলেন,“ ডিজিকন বাংলাদেশে আউটসোর্সিংয়ে পথ প্রদর্শনকারী সংস্থা। তারা যথেষ্ঠ সততা, দক্ষতা ও যোগ্যতার সহিত কল সেন্টারের মাধ্যমে আউটসোর্সিং সেবা দিয়ে যাচ্ছে এবং আমাদের অর্থনীতি মজবুত ভিত্তির উপর দাঁড় করাতে কাজ করে যাচ্ছেন।” এ সময় ডিজিকনের সিইও ওয়াহীদ শরীফ মাননীয় প্রতিমন্ত্রীকে অবহিত করেন যে, ডিজিকন স্যামসাং, টেলিটক,  এয়ারটেল, ওলো, ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংকসহ  বিভিন্ন মাল্টি-ন্যাশনাল কোম্পানীকে সেবা দিয়ে যাচ্ছে এবং সরকারের প্রযুক্তি-বান্ধব নীতির ফলে এ সেবার পরিধি দিন দিন বাড়ছে। পরে মাননীয় প্রতিমন্ত্রী ডিজিকন অফিস ঘুরে দেখেন এবং কর্মরত তরুণ-তরুণীদের সাথে কথা বলেন। এ সময় তিনি বাংলাদেশে কল সেন্টারকে একটি পূর্ণাঙ্গ শিল্প হিসেবে গড়ে তুলতে বাঁধাসমূহ কি কি জানতে চান এবং কল সেন্টারের শিল্প সম্প্রসারণের জন্য তাঁর সরকারের গৃহীত পদক্ষেপসমূহ তুলে ধরে  ডিজিকনের সব-স্তরের কর্মকর্তা, কর্মচারীকে ধণ্যবাদ জানান । মাননীয় প্রতিমন্ত্রীর সাথে এসময় উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব কল সেন্টার এন্ড আউটসোর্সিং- এর সভাপতি আহমদুল হক ।

 

About অঞ্জন দেব

একটি উত্তর দিন