কম্পিউটার ভাইরাস : আতঙ্কিত নয়, সচেতন হোন

কম্পিউটার ভাইরাস : আতঙ্কিত নয়, সচেতন হোন

কম্পিউটার ও স্মার্ট ডিভাইস ব্যবহারকারীদের জন্য মূর্তিমান আতঙ্কের নাম ভাইরাস। আর সব প্রোগ্রামের মতো এক ধরনের সফটওয়্যার, যা ডিভাইসে আশ্রয় নিয়ে তথ্য ও ফাইল পরিবর্তন বা মুছে ফেলাসহ বিভিন্ন অ্যাকাউন্টে ব্যবহৃত ইউজার নেম, পাসওয়ার্ড ও অন্যান্য ব্যাংকিং তথ্য হ্যাকারের কাছে পাঠানোর কাজে ব্যবহৃত হয়, তাদেরই বলা হয় ভাইরাস।
সহজ কথায়, আপনার কম্পিউটার বা স্মার্টফোনে দৈনন্দিন কাজ সহজ করতে ও বিনোদনের জন্য ব্যবহৃত প্রোগ্রামগুলোর মতো ভাইরাসও এক ধরনের সফটওয়্যার। নিয়মিত প্রোগ্রামগুলোর সঙ্গে ভাইরাসের পার্থক্য এই যে, আপনার জীবনযাত্রা সহজ করতে এসব আপনার চাহিদামাফিক কাজ করলেও ভাইরাস গোপনে ডিভাইসে জায়গা করে নেয় এবং নিজে থেকেই কাজ শুরু করে।
ইন্টারনেটে সংযুক্ত অবস্থায় কিংবা তথ্য আদান-প্রদানের মাধ্যমে ভাইরাস একবার আপনার ডিভাইসের সংস্পর্শে এলে শুধু অনুপ্রবেশ করেই ক্ষান্ত হয় না, বরং নিজে থেকে এর অনুরূপ ছড়িয়ে দেয় ডিভাইসের বিভিন্ন ফাইল, ফোল্ডারে ও ড্রাইভে।
এ সময় আপনি যদি কোনো নেটওয়ার্কে সংযুক্ত থাকেন অথবা আপনার কম্পিউটার বা স্মার্টফোন থেকে কোনো ফাইল সিডি, পেনড্রাইভ, মেমোরি কার্ডসহ ব্লুটুথ, ওয়াইফাই, ই-মেইল বা ইন্টারনেটের অন্য কোনো মাধ্যমে আরেকটি ডিভাইসে পাঠান, তাহলে সেটিও ভাইরাসে আক্রান্ত হবে।
যেভাবে বুঝবেন আপনার কম্পিউটার/স্মার্টফোন ভাইরাসের শিকার :

অন্যান্য সফটওয়্যারের মতো ভাইরাস এবং এর ধরন হালনাগাদের ফলে লক্ষণগুলো পরিবর্তনশীল হলেও কোনো ডিভাইসে নিচের বৈশিষ্ট্যগুলো দেখা গেলে তা সংক্রমিত বলে ধরে নেওয়া যেতে পারে।

পপ-আপ বার্তা প্রদর্শন

অ্যাড ব্লকার ব্যবহার না করলে ব্রাউজার চালু থাকাকালীন পপ-আপ হিসেবে বিজ্ঞাপন আসা স্বাভাবিক হলেও ব্রাউজার বন্ধ থাকা অবস্থায় পপ-আপ এলে বুঝতে হবে ডিভাইসে ভাইরাসের উপস্থিতি রয়েছে।

নিজ থেকে বার্তা চলে যাওয়া

ই-মেইল, টুইটার বা ফেসবুক থেকে যদি বন্ধুদের কাছে আপনার অজ্ঞাতে বার্তা গিয়ে থাকে, তবে এখনই সাবধান হোন। কেননা, এর মানে আপনি কোনো ভাইরাসের শিকার হয়েছেন।

ফাইল লকড শীর্ষক বার্তা পাওয়া

ডিভাইস সক্রিয় থাকা অবস্থায় ‘লকড’ উল্লেখ করে যদি যোগাযোগ করতে সতর্কতা দেখানো হয়, তাহলেও সচেতন হওয়া জরুরি।

প্রোগ্রাম/টুল আছে, কিন্তু চালু হচ্ছে না

স্টার্ট বা প্রোগ্রামসে থাকার পরও যদি কোনো বিশেষ সফটওয়্যার চালু না হয় বা কাজ না করে।

অদ্ভুতুড়ে আচরণ প্রদর্শন

এসব লক্ষণের বাইরেও অনেক সময় ডিভাইস ভাইরাসে আক্রান্ত হলে কিছু অদ্ভুতুড়ে আচরণ প্রদর্শন করে। এসবের মাঝে উল্লেখযোগ্য হলো, হুট করেই পিসি বা মোবাইলের কাজের গতি ধীর হয়ে যাওয়া, কোনো কাজ না করা হলেও অতিরিক্ত মেমোরি ব্যবহৃত হচ্ছে দেখানো ও হার্ডড্রাইভ বা মডেমের বাতি কোনো কারণ ছাড়াই জ্বলা বা নেভা।

About Sohel Rana

একটি উত্তর দিন