এশিয়া প্যাসিফিক আইসিটি অ্যালায়েন্সের সদস্যপদ পেলো বেসিস

এশিয়া প্যাসিফিক আইসিটি অ্যালায়েন্সের সদস্যপদ পেলো বেসিস

Bangladesh Now APICTA Member (1)তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নে বিশেষ ভূমিকা রাখা আন্তর্জাতিক সংগঠন এশিয়া প্যাসিফিক আইসিটি অ্যালায়েন্স (অ্যাপিকটা) এর সদস্যপদ পেয়েছে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস)। গত ২৩ থেকে ২৫ মার্চ সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠিত অ্যাপিকটার ৪৮তম কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় বেসিস এই সদস্যপদ পায়।
মঙ্গলবার বেসিস সভাকক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন বেসিস সভাপতি শামীম আহসান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, এমপি।
অনুষ্ঠানে জানানো হয়, এশিয়ার তথ্যপ্রযুক্তি খাতের বড় সংগঠন হলো অ্যাপিকটা। এশিয়া প্যাসেফিক অঞ্চলের বিভিন্ন দেশের তথ্যপ্রযুক্তি সংগঠনের এই জোট মূলত সদস্য দেশগুলোর পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে নিজ নিজ দেশের তথ্যপ্রযুক্তি সেক্টরের কাঠামো গঠন ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে কাজ করে থাকে। এছাড়া সদস্য দেশগুলের নিজস্ব তথ্যপ্রযুক্তিকে বিশ্ববাজারে তুলে ধরা, তথ্যপ্রযুক্তির সক্ষমতা উন্নয়ন এবং প্রযুক্তি ইনোভেশনগুলোকে এগিয়ে নিতে বেশ শক্ত ভূমিকা রাখে এই জোট। বাংলাদেশের সঙ্গে এশিয়ার বিভিন্ন দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের ব্যবসায় সম্ভাবনা বাড়াতে অ্যাপিকটার সদস্যপদ নেওয়ার জন্য সম্প্রতি আবেদন করে বেসিস। এপিকটার সদস্যপদ পেতে নিজ দেশের তথ্যপ্রযুক্তি উন্নয়নে সরকারের সাথে কাজ করা নিবন্ধিত আইসিটি সংগঠন, স্থানীয়ভাবে অ্যাপিকটা অ্যাওয়ার্ড আয়োজনের সক্ষমতাসহ ছয়টি যোগ্যতা পূরণ করতে হয়। যোগ্যতা পূরণ করে আবেদনের পর বেশ কয়েকটি ধাপ পেরিয়ে টিকে গেলে আবেদনকারী সংগঠনকে সদস্যপদ পাওয়র যথার্থতা তুলে ধরে নির্বাহী কমিটির কাছে প্রেজেন্টেশন দিতে হয়। এরপর কমিটি সদস্য পদ ঘোষণা করে। তারই ধারাবাহিকতায় অ্যাপিকটার ৪৮তম কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় বেসিস প্রতিনিধিদলের অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়। এরই পরিপেক্ষিতে বেসিস সভাপতি শামীম আহসান গত ২৪ মার্চ সিঙ্গাপুরে এপিকটার নির্বাহী কমিটির কাছে বাংলাদেশের আইসিটি সেক্টরের উন্নয়ন ও সম্ভাবনা নিয়ে প্রেজেন্টেশন দেন। উপস্থিত সদস্য দেশগুলো বেসিস কার্যক্রম দেখে সন্তুষ্ঠ হন ও তারা ভূয়সী প্রশাংসা করেন। এর আগে বেসিস সভাপতিসহ তার সফরসঙ্গী এশিয়ান-ওশেনিয়ান কম্পিউটিং ইন্ডাস্ট্রি অর্গানাইজেশনের (অ্যাসোসিও) সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ এইচ কাফি ও বেসিসের মহাসচিব উত্তম কুমার পাল সদস্য সংগঠনগুলোর প্রতিনিধিদের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করে বাংলাদেশের পক্ষে ভোট দেওয়ার অনুরোধ জানান। এই অনুরোধের ফলে ও বেসিসের প্রেজেন্টেশনে অভিভূত হয়ে তারা বেসিসকে ভোট দেন। তারই পরিপেক্ষিতে বেসিস এতো বড় সংগঠনের সদস্যপদ অর্জন করে।
বেসিস সভাপতি শামীম আহসান বলেন, দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নে ও বাংলাদেশ ব্র্যান্ডিংয়ে শুধুমাত্র যুক্তরাজ্য ও ইউরোপে ফোকাস করলেই হবে না, এশিয়ার দেশগুলোকেও গুরুত্ব দেওয়া জরুরী। যেহেতু এই অঞ্চলে তথ্যপ্রযুক্তির উন্নয়নে অ্যাপিকটা অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে তাই এটার সদস্য হতে পেরে বেসিস সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করতে পারবে। এতে ব্যবসায়িক উন্নয়ন ও বিনিয়োগ সম্ভাবনা বাড়বে। আর এর মাধ্যমে বেসিসের ওয়ান বাংলাদেশ ভিশন বাস্তবায়ন হবে।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, অ্যাপিকটার মতো সংগঠনের সদস্যপদ পাওয়া বাংলাদেশের জন্য একটি গৌরবের বিষয়। এজন্য সরকারের পক্ষ থেকে আমরা বেসিসকে ধন্যবাদ জানাই। এর মাধ্যমে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতকে বদলে দেওয়া সম্ভব হবে। অ্যাপিকটার সদস্য সংগঠনের সঙ্গে পার¯পরিক স¤পর্ক বৃদ্ধি, তথ্যপ্রযুক্তির আদান-প্রদান ও বিভিন্ন কার্যক্রমের মাধ্যমে বাণিজ্য উন্নয়ন সম্ভব হবে। এছাড়া বেসিসের সঙ্গে বার্ষিক উন্নয়ন পরিকল্পনায় আমরা বিভিন্ন কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি, যা আন্তর্জাতিকভাবেও স্বীকৃতি পাচ্ছে।
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, অ্যাপিকটা সদস্য দেশগুলোর তথ্যপ্রযুক্তি পণ্য এবং সেবার উন্নয়ন ও প্রসারে কাজ করে। এছাড়া প্রতিবছর তথ্যপ্রযুক্তির সেরা উদ্ভাবনগুলোকে অ্যাপিকটা অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হয়। আয়োজন করা হয় বিজনেস ম্যাচমেকিং যেখানে বিনিয়োগকারী, সম্ভাব্য পার্টনার ও ভোক্তাদের সম্মিলন ঘটানো হয়। এছাড়া বিজনেস এক্সপো, সেমিনার ও ট্রেড মিশনের মাধ্যমে পার¯পরিক জ্ঞান বিনিময় ও উন্নয়ন দেখানো হয়। অ্যাপিকটা ইন্ডাস্ট্রি ও আরঅ্যান্ডডি এর মধ্যে সমন্বয় সাধন করে। এছাড়া সদস্য সংগঠনগুলোর মাধ্যমে সংশ্লিষ্ঠ দেশগুলোর মধ্যে আইসিটি মানবস¤পদ গড়ে তোলা ও তাদের চাকরির সুযোগ তৈরি করে অ্যাপিকটা। আর এসব কার্যক্রমের মাধ্যমেই সংশ্লিষ্ঠ দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়। সে কারণেই অ্যাপিকটার সদস্যপদের মাধ্যমে বেসিস বাংলাদেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়ন, প্রচার ও প্রসারে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যেতে সক্ষম হবে।
উল্লেখ্য অ্যাপিকটার অন্যান্য সদস্য দেশগুলো হলো- অস্ট্রেলিয়া, ব্রুনেই, চীন, চাইনিজ তাইপে, হংকং, ইন্দোনেশিয়া, ম্যাকাও, মালয়েশিয়া, মায়ানমার, পাকিস্তান, সিঙ্গাপুর, শ্রীলংকা,থাইল্যান্ড ও ভিয়েতনাম।
সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বেসিসের সাবেক সভাপতি মাহবুব জামান ও এস এম কামাল, বেসিসের সাবেক মহাসচিব আতিক-ই-রাব্বানী, সোয়েব আহমেদ মাসুদ, ফোরকান বিন কাশেম এবং বেসিসের মহাসচিব উত্তম কুমার পাল, যুগ্ম-মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান সোহেল, নির্বাহী পরিচালক সামি আহমেদ প্রমুখ।

About Sohel Rana

একটি উত্তর দিন