উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়াস অ্যাসাঞ্জের জীবন কাহিনী নিয়ে চলচ্চিত্র।

উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়াস অ্যাসাঞ্জের জীবন কাহিনী নিয়ে চলচ্চিত্র।

জুলিয়াস অ্যাসাঞ্জের জীবন কাহিনী নিয়ে চলচ্চিত্রযুক্তরাষ্ট্রসহ অনেক দেশের স্পর্শকাতর তথ্য ফাঁস করে দেয়া সাইট উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে নিয়ে ইকুয়েডর ও যুক্তরাজ্য সরকারের মধ্যে টানপড়েন চলেছে বেশকিছু দিন ধরে। তিনি আশ্রয় নিয়েছেন লন্ডনের ইকুয়েডর দূতাবাসে।

দুনিয়াব্যাপী চাঞ্চল্যের জন্ম দেয়া জুলিয়াস অ্যাসাঞ্জের জীবন কাহিনী নিয়ে হয়েছে চলচ্চিত্র। ‘আন্ডারগ্রাউন্ড: দ্য জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ স্টোরি’ নামে চলচ্চিত্রটি টরন্টো ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে প্রথমবারের মতো প্রদর্শন করা হয়।

উল্লেখ, ২০১০ সালে উইকিলিকসে অসংখ্য সংবেদনশীল তথ্য প্রকাশ প্রায়। ফলে শক্ত সমর্থকের পাশাপাশি শত্রুও জোগাড় করে নেন অ্যাসাঞ্জ। যৌন নিপীড়নের অভিযোগে ৪১ বছর বয়সী অ্যাসাঞ্জকে সুইডেনের আইন প্রয়োগকারী সংস্থা যুক্তরাজ্য থেকে স্থানান্তরের চেষ্টা করে আসছে। এ ব্যাপারে মামলার রায় অ্যাসাঞ্জের বিপক্ষে যাওয়ার পর তিনি ইকুয়েডরে রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়ে দেশটির লন্ডন দূতাবাসে আশ্রয় নিয়েছেন। এদিকে দূতাবাসের বাইরে বেরিয়ে এলে তাকে আটক করার হুমকি দিয়ে আসছে লন্ডন পুলিশ।

অস্ট্রেলিয়ান টিভি চলচ্চিত্রে অ্যাসাঞ্জকে দেখা যায় তরুণ একজন কম্পিউটার হ্যাকারের ভূমিকায়। অস্ট্রেলিয়ার এ চলচ্চিত্রটিই অংশ নিচ্ছে আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উত্সবে। উইলিয়াম অ্যাসাঞ্জের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন অভিনেতা অ্যালেক্স উইলিয়াম। অ্যাসাঞ্জের মা ক্রিস্টিনের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন র্যাচেল গ্রিফিথ। অ্যাসাঞ্জের প্রেমিকার ভূমিকায় লারা হুইলরাইট এবং তদন্তকারী পুলিশ সদস্যের ভূমিকায় অ্যান্থনি ল্যাপাগলিয়াকে দেখা যাবে।

চলচ্চিত্রটির চিত্রনাট্য রচনা ও পরিচালনা করেছেন রবার্ট কনলি। ১৯৯৭ সালের সুয়েলেট ড্রেফুসের লেখা উপন্যাস ‘আন্ডারগ্রাউন্ড: টেইলস অফ হ্যাকিং, ম্যাডনেস অ্যান্ড অবসেশন অন দ্য ইলেকট্রনিক ফ্রনটিয়ার’ উপন্যাসের ছায়া অবলম্বনে নির্মিত হয় চলচ্চিত্রটি।

এর ট্রেইলার এরই মধ্যে অস্ট্রেলিয়ান চ্যানেল নেটওয়ার্ক টেনে প্রচার করা হয়েছে।

সূত্র- জি নিউজ

About বিদ্যুৎ বিশ্বাস

একটি উত্তর দিন