ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে বিপিও সামিটের অ্যাক্টিভেশন কার্যক্রম অনুষ্ঠিত

ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে বিপিও সামিটের অ্যাক্টিভেশন কার্যক্রম অনুষ্ঠিত

baccaসরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব কলসেন্টার এন্ড আউটসোর্সিং (বাক্য) এর যৌথ উদ্যোগে আগামী ৯-১০ ডিসেম্বর ঢাকায় প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হবে বিপিও সামিট ২০১৫। দুই দিনব্যাপী এই সামিট উপলক্ষে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে একাধিক অ্যাক্টিভেশন কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এই ধারাবাহিকতায় ২১ নভেম্বর শনিবার রাজধানীর ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটিতে বিপিও সামিট ২০১৫ উপলক্ষে অ্যাক্টিভেশন কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়েছে। ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির ধানমন্ডি ক্যাম্পাসে সেমিনার রুমে ‘ক্যারিয়ার অপরচুনেটি ইন বিপিও ইন্ডাস্ট্রিজ’ বিষয়ক আলোচনার আয়োজন করা হয়।
অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর আব্দুর রব, ইঞ্জিরিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি ফ্যাকাল্টির ডিন প্রফেসর ড. মর্তুজা আলী, কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারপার্সন প্রফেসর ড. নুরুল ইসলাম,  বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অফ কলসেন্টার এন্ড আউটসোর্সিং (বাক্য) এর সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ হোসেন, বিক্রয় ডট কমের সহকারী ব্যবস্থাপক (মার্কেটিং) মো. মাহবুব হাসান, আমরা কোম্পানিজ এর হেড অব বিজনেস সোলায়মান সুখনসহ অনেকে।
ইস্টার্ন ইউনিভার্সিটির উপাচার্য প্রফেসর আব্দুর রব বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার জন্য সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহন করেছে। সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার বৃদ্ধি পেয়েছে। চাকরির বাজারেও তথ্য-প্রযুক্তির ক্ষেত্রে যোগ্যতা সম্পন্নদের চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের চাকরির বাজারের জন্য যোগ্যতাসম্পন্ন করে গড়ে তুলতে হবে।
বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব কলসেন্টার এন্ড আউটসোর্সিং (বাক্য) এর সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ হোসেন শিক্ষার্থীদের কাছে বিপিও সামিট ২০১৫ ও বিপিও এর প্রয়োজনীয়তা নিয়ে একটি প্রেজেন্টশন উপস্থাপন করেন। এ সময় তিনি বিপিও ক্ষেত্রে দেশ ও বিদেশে কাজের ক্ষেত্রের অবস্থা তুলে ধরে বলেন, সবার আগে শিক্ষার্থীদের নিজেকে যোগ্য হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। এবং বর্তমান বাজারে কোন কোন ক্ষেত্রে চাকরির বাজারে আছে সে সম্পর্কে ভালো জ্ঞান থাকতে হবে। বিপিও সামিট ২০১৫ শিক্ষার্থীদের প্রযুক্তির চাকরির বাজার সম্পর্কে একটি ভালো দিবে বলে জানান তিনি।
ইঞ্জিরিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি ফ্যাকাল্টির ডিন প্রফেসর ড. মর্তুজা আলী বলেন, শিক্ষার্থীরা আধুনিক প্রযুক্তি শিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে। তাহলে দেশকে এগিয়ে নিতে পারবে তারা। চাকরির বাজারে প্রযুক্তি শিক্ষায় শিক্ষিত তরুণদের চাহিদা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। চাকরির বাজারে তথ্যপ্রযুক্তির কোন বিকল্প নেই।
অ্যাক্টিভেশন কার্যক্রমের অংশ হিসাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য আরও বেশ কিছু আয়োজন করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীদের নিয়ে প্রেজেন্টেশন ও প্যানেল ডিসকাশন পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। বিক্রয় ডট কমের সহকারী ব্যবস্থাপক (মার্কেটিং) মো. মাহবুব হাসান বলেন, অনেক শিক্ষার্থীই জানে না অনলাইনে কিভাবে চাকরি খুঁজে পেতে হয়। আমাদের প্রতিষ্ঠানের অনলাইনে শিক্ষার্থীদের চাকরি খুঁজে বের করা ও কিভাবে চাকরিতে আবেদন করতে হয় সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো হয়। বিক্রয় ডট কমের পক্ষ থেকে আয়োজনে অংশগ্রহণকারী ৩০ জন শিক্ষার্থীকে উপহার দেওয়া হয়। আমরা কোম্পানিজের আয়োজন অনুষ্ঠিত হয় শিক্ষার্থীদের মাঝে কুইজ প্রতিযোগীতা। প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহন শিক্ষার্থীকে আমরা কোম্পানিজের পক্ষ থেকে দু’টি স্মার্ট ফোন ও ৮টি সেলফি স্টিক উপহার দেওয়া হয়।
অ্যাক্টিভেশন কার্যক্রম বিষয়ে ইস্টার্ন ইউনির্ভাসিটির কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২ম সেমিস্টারের শিক্ষার্থী মুস্তাফিজুর রহমান জানান, সারা বিশ্বে তথ্য প্রযুক্তি ক্ষেত্রে চাকরির বাজারে অনেক সম্ভবনা আছে। আমাদের সেই সম্ভবনা গুলো খুঁজে বের করতে হবে। ইলেকট্রনিক্স এন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারি (ইইই) বিভাগের দশম সেমিস্টারের শিক্ষার্তী শাখাওয়াত হোসেন বলেন, পড়াশোনা শেষ করে চাকরির বাজারে নিজেরে যোগ্য প্রার্থী হিসেবে উপস্থাপন করার জন্য এ আয়োজনগুলো বিশেষ ভুমিকা পালন করবে। আগামী ৯-১০ ডিসেম্বর সামিট চলাকালীন প্রযুক্তি ক্ষেত্রে চাকরির সম্পর্কে আরও ভালো ভাবে জানতে পারবো।
উল্লেখ্য, ‘বিপিও  সামিট ২০১৫’ ঢাকার প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে অনুষ্ঠিত হবে। বিপিওকে মূল মাধ্যমে নিয়ে আসা, দেশের তরুণ তরুণীদের বেশি করে এই খাতে আগ্রহী করে তোলা এবং দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারে আমাদের বিপিও সেক্টরের অবস্থানকে তুলে ধরার লক্ষ্য নিয়ে এ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়েছে।

About Sohel Rana

একটি উত্তর দিন