ইউল্যাব ও ঢাকা পলিটেকনিকে বিপিও সামিটের অ্যাক্টিভেশন কার্যক্রম

ইউল্যাব ও ঢাকা পলিটেকনিকে বিপিও সামিটের অ্যাক্টিভেশন কার্যক্রম

ULAB Activation Picঘড়িা কাঁটা সকাল ১০টা। ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টসের (ইউল্যাব) অডিটরিয়াম পরিপূর্ণ। অনেকে বসার জায়গা না পেলে দাঁড়িয়ে থেকে অনুষ্ঠান উপভোগ করছেন। বিপিও সামিট ২০১৫ উপলক্ষে আয়োজিত অ্যাক্টিভেশন কার্যক্রমে ইউল্যাবের চিত্র ছিলো এমনটাই। বিকাল ৩টায় অনুষ্ঠিত ঢাকা পলিটেকটিক ইন্সটির্টিউটের অ্যাক্টিভেশন কার্যক্রমের চিত্র ইউল্যাবের মতো। ২৪ নভেম্বর মঙ্গলবার বিপিও সামিট ২০১৫ উপলক্ষে দুই ক্যাম্পাসে আয়োজন করা হয় অ্যাক্টিভেশন কার্যক্রম।
সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব কলসেন্টার এন্ড আউটসোর্সিং (বাক্য) এর যৌথ উদ্যোগে আগামী ৯-১০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য প্রথম বিপিও সামিট ২০১৫ উপলক্ষে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে একাধিক অ্যাক্টিভেশন কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
সকালে রাজধানী ধানমন্ডির ইউল্যাবের ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত আয়োজনে বিপিও সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরেন আইএসএসএল এর সিনিয়র এক্সকিউটিভ রঞ্জন দত্ত। এ সময় তিনি বলেন, আমাদের দেশে জনসংখ্যা আমাদের শক্তি। এই জনশক্তি ব্যবহার করে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে। আমাদের পাশ্ববর্তী দেশ ভারতের জনসংখ্যা অনেক বেশী। তারা বিপিও মার্কেটে সত্তর ভাগের মতো কাজ করছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের বিপিওতে ভালো করার অনেক ভালো সুযোগ রয়েছে। এ জন্য শিক্ষার্থীদের সবার আগে এগিয়ে আসতে হবে। বিপিও সামিটের মতো আয়োজনের অংশগ্রহন করে দক্ষতা বৃদ্ধি করতে হবে। অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউল্যাবের রেজিস্ট্রার কর্ণেল ফয়জুল ইসলাম, ক্যারিয়ার অফিস সার্ভিসের পরিচালক হাফিজ আল আহাদ, কম্পিউটার সাইন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. সাজ্জাদ হোসেন, বেসিসের সাবেক পরিচালক একেএম সাব্বির মাহমুদ, বিক্রয় ডটকমের সিনিয়র এক্সকিউটিভ নাজমুল হোসেনসহ অনেকে। বক্তারা বলেন, তরুণদের বিশেষ করে শিক্ষার্থীদের দেশকে এগিয়ে নিতে অগ্রনী ভূমিকা নিতে হবে। তাহলে দেশে বিপ্লব হবে। বিপিও সামিটসহ এ রকম বিভিন্ন ভালো আয়োজনে তরুণ শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহন বৃদ্ধি করতে হবে।
বিকালে ঢাকা পলিটেকটিক ইনস্টিটিউটে অনুষ্ঠিত দিনের দ্বিতীয় অ্যাকটিভেশন কার্যক্রমে বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব কলসেন্টার এন্ড আউটসোর্সিং (বাক্য) এর সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ হোসেনের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন ঢাকা পলিটেকটিক ইন্সটির্টিউটের উপ-উপার্চায আবুল কাশেম মজুমদার। এ সময় তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের শুধু পড়াশোনার মধ্যে ডুবে থাকলে হবে না। তাদেরকে বিভিন্ন কর্মমুখী কাজের দিকে এগিয়ে যেতে হবে। বিপিও সামিট ২০১৫ আমাদের সেই পথ দেখাবে। আয়োজনে আরও উপস্থিত ছিলেন কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রকৌশলী জাবেদ আদমেদ, আইএসএসএল এর সিনিয়র এক্সকিউটিভ রঞ্জন দত্ত, বেসিস স্টুডেন্টস ফোরামের আহ্বায়ক ও পরিচালক আরিফুল হাসান অপু, বিক্রয় ডট কমের পরিচালক (বিপণন) মিশা আলী, আমরা টেকনোলজিসের হেড অব বিজনেস সোলায়মান সুখনসহ অনেকে। বাক্য সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ হোসেন বলেন, এই সামিটের মাধ্যমে আমরা তরুণদের আউটসোসিং ও কলসেন্টার সম্পর্কে একটি ভালো ধারনা দিতে পারবো বলে আশা করছি।
দুটো আয়োজনেই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীদের নিয়ে প্রেজেন্টেশন ও প্যানেল ডিসকাশন পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। আয়োজনে শিক্ষার্থীদের আমরা টেকনোলজিসের পক্ষ থেকে স্মার্ট ফোন ও সেলফি স্টিক উপহার দেওয়া হয়। এছাড়া বিক্রয় ডট কমের পক্ষ থেকে দেওয়া হয় বিভিন্ন উপহার।

About Sohel Rana

একটি উত্তর দিন