যে দশটি কারনে আর্জেন্টিনার হেরে যাওয়া আমাকে প্রচন্ড আনন্দিত করেছে!

যে দশটি কারনে আর্জেন্টিনার হেরে যাওয়া আমাকে প্রচন্ড আনন্দিত করেছে!

আজ আবার দীর্ঘ কয়েক যুগ পরে এডলফ হীটলারের বাহিনী ইয়াহুদি এজেন্ট-দের দাত ভেংগে দিল। বিশ্লেষণ করে বলছি। তবে তার পুর্বে একটা কথা বলে নেওয়া ভাল ফাইনালের ফলাফল যদি এমন না হত তবে কোন দিন এই লিখাটা প্রকাশ করতাম না। আমার এই পোস্ট আর্জেন্টিনা কিংবা ব্রাজিল এর বিপক্ষে নয় বরং কিছু ইয়াহুদি এজেন্ট দের বিরুদ্ধে।

adolfhitler

আমি আর্জেন্টিনা কিংবা ব্রাজিল সাপোর্টার নই, পিওর জার্মানি ছিলাম। অপর একটি সত্য হচ্ছে আর্জেন্টিনা কিংবা ব্রাজিল এর কোনটাকেই আমি প্রতিদন্দি কখনই মনে করিনি অর্থাৎ আর্জেন্টিনা কিংবা ব্রাজিল হারিয়ে কোন আনন্দ পেতাম না। বরং খুব বেশি হাসি পাইত যখন দেখতাম ২৪ বছর পর কিংবা ১৬ বছর পর উঠে আশা কোন দলের সাথে জার্মানির তুলনা করা হত।

রমজানের মাঝের দিকে ফিলিস্তিনদের যখন গণহারে মুসলিম নিধন শুরু করল ইসরাইলের ইয়াহুদিরা তখনই আমি একটা অশহ্য কস্টে ভুগতে শুরু করি। চুপ ছিলাম কিন্তু ঠিক করে ছিলাম জিতলেই সব বলব। হিটলারের মত একজন কঠিন ইয়াহুদি বিরোধী মানুষের এর অভাব অনুভব করছিলাম। সে অভাব ইয়াহুদি এজেন্ট-দের দাত ভেংগে দেওয়ার মাধ্যমে জার্মান দল একটু হলেও পুরন করতে পেরেছে। তা আমি ধারাবাহিক ভাবে প্রকাশ করব। কে কিভাবে ইয়াহুদি এজেন্ট হল, তথ্য প্রমান সহ আমি পরবর্তি লিখাতেই ধারাবাহিক ভাবে আলোচনা করব। কিন্তু এখন নয় এখন জার্মান জিতাতে যে যে কারনে আমি খুব আনন্দিত শুধু সেই সেই বিষয়গূলোই আলোচনা করবঃ

১। মেসি একজন ইয়াহুদি এজেন্ট (প্রমান এবং ভিডিও চিত্র সহ পরের পোস্টেই দিচ্ছি।)
২। এডলফ হীটলার কে অর্থাৎ জার্মানিদের ইয়াহুদিরা সহ্য করতে পারেনা, ফলে জার্মানিদের এই জয় ইসরাইলের জন্য ভাল কস্টের।
৩। মেসি একজন ইয়াহুদি এজেন্ট তাই স্বাভাবিক ভাবেই গতকাল পুরু ইসরাইল ছিল আর্জেন্টিনার পক্ষে।
৪। তিন জন ভাল মানের প্লেয়ার রয়েছেন যার প্রত্যেকেই মুসলিম। (ওজিল-খেদিরা-মুস্তাফি)
৫। ওজিল এর রোযা রেখে খেলার ব্যাপারটা ছিল আরও আনন্দের।
৬। মার্কিন বিরোধী শক্তির জয়।
৭। ক্লোসা, মুলারের ইসরাইলের অমানবিক অত্যাচারের তীব্র প্রতিবাদ করে টুইট করা।
৮। অপরদিকে তীব্র কস্ট পাই যখন দেখি ইয়াহুদির পেজ গুলা পোস্ট করে “আমারা ঠিক পথে আছি আমাদের সাথে মেসি, নেইমার,… আছে”।
৯। মেসি কিংবা নেইমারকে নিয়ে অতি বেশীই বেশী মাতামাতি।

১০। আশা করি নেক্সট এক-দু বছরে আর অন্তত এই দুই ইসরাইলি এজেন্ট ইয়াহুদিদের জণ্য মায়া কান্না আর কাঁদার সুযোগ পাবে না বরং নিজেদের বাস খাওয়া নেয়েই ব্যাস্ত থাকবে।

 dsdf

আসা করি খুব দ্রুতই আবার লিখব ফিরে আসব তথ্য প্রমান, ভিডিও প্রমান সহ। অপেক্ষায় ছিলাম অনেকদিনের শুধু আজকের দিনটার জন্য, কারন আজকের দিনের পুর্বে লিখলেই অনেকেই বলত নিজ দল হেরে যাওয়ায় আমি এগুলা লিখছি। চুপ ছিলাম কিন্তু ঠিক করে ছিলাম জিতলেই সব বলব। আর একটি কথা গত কয়েকদিনে সামাজিক সাইটগুলোতে নিশ্চয়ই মেসি-নেইমারের ইসরাইল সমর্থনের ছবি দেখেছেন আগেই কিন্তু অনেকেই নিজেকে মিথ্যা শান্তনা দিচ্ছেন মেসি এমন না, নেইমার এটা করতে পারে না। তাদের জন্য খুব দ্রুতই আমি আমার পরবর্তি লিখা তথ্য প্রমান সহ প্রকাশ করব।

1924354_601764253265299_2112792254254092851_n

সব শেষে বলব আমার কাওকে কস্ট দেওয়ার উদ্দেশ্য নেই। বরং আমার ফিলিস্তিনি ভাইদের যারা হত্যা করছে তাদেরই মুখোশ খুলে দিতেই আমার এই লিখা। তাই আপনি যদি দুঃখ পেয়ে থাকেন আমি দুঃখিত। শুধু একটা মেসেজ আমি সকলের কাছে স্পস্ট করতে চাই “যেই ইয়াহুদিরা ফিলিস্তিনি ভাইদের রক্ত ঝরাচ্ছে সেই ইয়াহুদিদের এজেন্ট হয়ে যদি কেউ কথা বলে স্বাভাবিক ভাবেই কি সেই ব্যাক্তি আমাদের শত্রু হয়ে যাবে না? স্বাভাবিক ভাবেই কি সেই ব্যাক্তি আমাদের ঘিন্যার যোগ্য নয়?

About Mehedi Menafa

Mehedi Menafa