আউটসোর্সিং খাতের সমস্যাগুলো

আউটসোর্সিং খাতের সমস্যাগুলো

freeআউটসোর্সিংয়ে আমাদের পিছিয়ে পড়ার কিছু সমস্যা রয়েছে। এসব সমস্যা সমাধানের জন্য এই সেক্টরের উদ্যোক্তারা দীর্ঘদিন যাবত দাবি তুললেও কোনো সমাধান হয়নি। রয়েছে সঠিক দিকনির্দেশনারও অভাব। তাই সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসা দরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখা সরকারকে। দেশের তথ্য-প্রযুক্তি খাতের বিশেষজ্ঞদের মতে, বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সারদের একটা বড় সমস্যা ধীরগতির ইন্টারনেট। ভালো মানের ইন্টারনেট ঢাকাকেন্দ্রিক। ঢাকার বাইরে ইন্টারনেটের জন্য বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মোবাইলের ওপর নির্ভরশীল থাকতে হয়। সুলভ মূল্যে দ্রুতগতির ইন্টারনেট সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়া সম্ভব হলে দ্রুত সমৃদ্ধ হবে আমাদের আউটসোর্সিং সংস্কৃতি। আরও একটা বড় সমস্যা হলো, আউটসোর্সিংয়ে কাজ করে পাওয়া টাকা দেশে নিজের অ্যাকাউন্টে নিয়ে আসা। ফ্রিল্যান্সারদের জন্য বিশেষ কোনো ব্যাংকিং ব্যবস্থা নেই। উপার্জিত অর্থ ফ্রিল্যান্সারদের বাংলাদেশে আনতে হয় বিভিন্ন অনুমোদনহীন মাধ্যমে। বাংলাদেশের সরকারের এ ব্যাপারে ত্বরিত ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত। বিদেশ থেকে অনলাইন পেমেন্ট সংগ্রহের জন্য বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ধরনের সেবা চালু আছে। এর মধ্যে পেপ্যাল, পেপেইড ইত্যাদি সেবা আন্তর্জাতিকভাবে ছড়িয়ে আছে। বাংলাদেশে পেপ্যাল সেবা এখনও চালু হয়নি। এই সেবা থাকলে অর্থ দ্রুত এবং সহজে পাওয়া যায়। আউটসোর্সিংয়ে আরেকটি বড় বাধা হচ্ছে বিদ্যুত্ সমস্যা। নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত্ সঙ্কটের কারণে সময়মত কাজ ডেলিভারি দেয়া সম্ভব হয় না অনেক সময়। এছাড়াও ছোট ছোট কোম্পানিগুলোর বিকাশের জন্য সরকারের উপরোক্ত ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন। বিশেষভাবে প্রয়োজন নতুন নতুন টেকনোলোজির ওপর প্রফেশনাল ট্রেনিং। তাছাড়া বাংলাদেশে এখনও আউটসোর্সিংকে পেশা হিসেবে নিতে সবাইকে দশবার ভাবতে হয়। কারণ পেশা হিসেবে বাংলাদেশে এখনও তেমন সম্মান দেয়া হয় না ফ্রিল্যান্সারদের। একজন ফ্রিল্যান্সার অনেক সময় নিজেকে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে বলতেও ইতস্তত বোধ করেন। এর আসল কারণ হলো, তার কাজ বা কাজের প্রক্রিয়া অধিকাংশ সাধারণ মানুষ বুঝতে পারেন না।

About Sohel Rana

একটি উত্তর দিন