আইসিটি খাতে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য তৈরি বাংলাদেশ: পলক

আইসিটি খাতে বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য তৈরি বাংলাদেশ: পলক

palokলন্ডনে শেষ হয়েছে দুই দিনব্যাপী ইউকে-বাংলাদেশ ই-কর্মাস ফেয়ার। সমাপনী দিনে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক বলেছেন, বিশ্ব বাজারে প্রযুক্তি নির্ভর পণ্যের চাহিদার উপর নির্ভর করে তথ্য প্রযুক্তির উৎকর্ষে বাংলাদেশও যে পিছিয়ে নেই ই-কর্মাস ফেয়ারের মাধ্যমে সেই বার্তা আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে পৌঁছে গেছে। প্রবাসীরা বিদেশে বসে প্রযুক্তি সেবা ব্যবহার করে খুব সহজেই দেশে রেমিটেন্স পাঠাতে পারবেন। সেই সাথে প্রিয়জনকে যেকোন উপহার সামগ্রী প্রেরণের ক্ষেত্রেও সুবিধা পাবেন প্রবাসীরা। আইসিটি প্রতিমন্ত্রী মনে করেন, বাংলাদেশে যে তরুণ মেধাবী ডেভেলপাররা রয়েছে তারা গুগল, অ্যামাজন কিংবা আলিবাবার মতো বিশ্বমানের অনলাইন বিজনেস মডেল তৈরি করতে সক্ষম, তবে তাদের অনুপ্রেরণার জন্য সরকার হাইটেক পার্কের মাধ্যমে প্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগের দুয়ার খুলে দিতে চায়। ইতিমধ্যে কালিয়াকৈরে ২৩২ একর জমির উপর হাইটেক পার্ক জোন করেছে সরকার। রাজধানী ঢাকা থেকে এই হাই-টেক পার্কের দূরত্ব মাত্র ২৫ কিলোমিটার। এছাড়াও প্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগে উৎসাহিত করার জন্য সরকার মহাখালীতে আইটি ভিলেইজ স্থাপনের পাশাপাশি যশোরে স্থাপন করেছে সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক, রাজশাহীতে বরেন্দ্র সিলিকন সিটি, সিলেটের সায়েন্স টেকনোলজি পার্কের পাশে ১৬৩ একর জমিতে সিলেট ইলেক্ট্রনিক uk-bdসিটি নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। সরকারের এই আহ্বানে সাড়া দিয়ে হাইটেক পার্কে বিনিয়োগ করলে বিনিয়োগকারীরা ১২ বছর শুল্ক মুক্ত বিনিয়োগ সুবিধার ও ২টি শুল্কমুক্ত গাড়ী আমদানি সুবিধার পাশাপাশি মুনাফা প্রত্যাবাসনের সুযোগ পাবে। মেলার দ্বিতীয় দিনে সকালে ব্রিটিশ বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ড্রাস্ট্রিজের সাথে এমওইউ সাক্ষর করেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক ও বিবিসিসিআই’র প্রেসিডেন্ট মাহতাব চৌধুরী। অন্যদিকে বিকেলে বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ও আইসিটি প্রতিমন্ত্রীর উপস্থিতিতে ইউকেবিসিসিআই-এর প্রেসিডেন্ট বজলুর রশীদ ও এফবিসিসিআই’র প্রেসিডেন্ট আবদুল মতলুব আহমেদ বাংলাদেশে হাইটেক পার্কে বিনিয়োগের জন্য পৃথক একটি এমওইউ স্বাক্ষর করেন। পরে বিকেলে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী এক প্রেস ব্রিফিং-এ সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন।

About Sohel Rana

একটি উত্তর দিন